Cvoice24.com

ফটিকছড়িতে চুরির অপবাদে মারধর, অপমানে যুবলীগ কর্মীর ‘আত্মহত্যা’

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৪:২৫, ১৫ আগস্ট ২০২২
ফটিকছড়িতে চুরির অপবাদে মারধর, অপমানে যুবলীগ কর্মীর ‘আত্মহত্যা’

নিহত রফিকুল ইসলাম

ফটিকছড়িতে মোবাইল চুরির অপবাদে মারধরের অপমান সহ্য করতে না পেরে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন রফিকুল ইসলাম নামে এক যুবলীগ কর্মী। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আজ সোমবার সকালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

জানা যায়, গতকাল রবিবার সকালে হেয়াঁকো বেক বাজার এলাকার এক নকশা মিস্ত্রী ও ওয়ার্ড যুবলীগ কর্মী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মোবাইল চুরির অভিযোগ আনা হয়। এরপর তাকে কয়েকজন মিলে যুবলীগ নেতা কামরুজ্জামান কমলের অফিসে নিয়ে ৪ ঘণ্টা আটকে রেখে মারধর করে। রফিকুলের আত্মীয়রা নগদ ৫ হাজার টাকা মুক্তিপণ দিয়ে তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় রবিবার বিকেলে রফিক নিজ বাড়িতে ফিরে অপমান সহ্য করতে না পেরে বিষপান করেন। পরে তার স্ত্রী বিবি কুলসুমা বেগমকে জানালে তারা তাকে স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখান থেকে তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। আজ সোমবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত রফিকুলের মামা শ্বশুর হাসেম বলেন, আমরা ভাগ্নী জামাইকে ব্যবসায়ীক বিরোধের সূত্রে কৌশলে যুবলীগ নেতা কমল তার অফিসে নিয়ে মারধর করে। পরে এই অপমানেই সে বিষপান করে মারা যায়।

এ ব্যাপারে মারধরকারী স্থানীয় যুবলীগ নেতা কামরুজ্জামান কমল বলেন, রফিক মোবাইল চুরি করে তার দোকানে লুকিয়ে রাখে। সেখান থেকে খোঁজাখুঁজির পর মোবাইলটি উদ্ধার করা হয়। প্রথমে চুরির কথা অস্বীকার করলেও পরে তা স্বীকার করে। এসময় ৪০ থেকে ৫০ জন লোকের সামনে তার আত্মীয় স্বজনের কাছে তাকে তুলে দেয়া হয়। মুক্তিপণ আদায়ের কথাটি ভিত্তিহীন।

ভূজপুর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম বলেন, রফিক নামের এক যুবক বিষপান করে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান তিনি।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়