Cvoice24.com

আত্মহত্যার আগে ৬ পৃষ্ঠার চিরকুটে যা লিখেছিল চবি ছাত্র

চবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬:৫০, ৩ জানুয়ারি ২০২২
আত্মহত্যার আগে ৬ পৃষ্ঠার চিরকুটে যা লিখেছিল চবি ছাত্র

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র অনিক চাকমার লেখা চিরকুট

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহজালাল হলের বিপরীতে এস আলম কটেজের ২১২ নম্বর রুম থেকে দরজা ভেঙে সিলিং ফ্যানে ঝুলন্ত অবস্থায় অনিক চাকমা নামে এক শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একইসঙ্গে সেখান থেকে পাওয়া গেছে অনিকের লেখা ৬ পৃষ্ঠার একটি চিরকুট। চিরকুটে আত্মহত্যার কথাটি স্পষ্ট করে উল্লেখ না থাকলেও এলোমেলোভাবে তিনি সেখানে বিভিন্ন বিষয়ে লিখেছেন।

পাঠকের সুবিধার্থে ৬ পৃষ্ঠার চিরকুটের লিখা হুবহু দেয়া হলো-

৯৮ সুপ্তা > ২০০১০১৯৯. মাথিন ৭০০০

১০০. ফুংগ্রে ১২০০/=

আমি অত্যন্ত লজ্জিত। আমি আপনাদের সবার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। আমি নিজেকে অত্যন্ত ঘৃণা করি। আমার মা বাবা, বড় ভাইবোন, ছোট ভাইবোন ও বন্ধুবান্ধবদের কাছে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। জানি আমার কথা শুনলে আপনাদের ঘৃণা লাগবে। আমি নিজেকে, আমার মাকে আর আমার বাবাকে অনেক ভালোবাসি। আর আদরের ছোটভাইকে ভালবাসি।

সেজন্য বাবা ও মা আমার জন্য অনেক করেছে। আমি যদি এই ভুলটা ভার্সিটিতে এসে ২০২১ সালে (শেষ ৩-৪ মাসে) না করতাম তবে অনেককিছুই হতো। স্বপ্ন সব চুরমার হয়ে গেলো।  

বন্ধুরা আমাকে বিশ্বাস করে দিয়েছে। আমি প্রতিদান দিতে পারি নি। বর ভাইবোন ছোটভাইবোন সবার কাছেই আমি ঘৃণ্য হয়েছি। 

আমি টাকা গরীবদের দান করব করব করেও হয়ে উঠল না। আবার এটা আমি কাউকে বলতেছি না যে এটা আমার ইচ্ছা ছিল। আমার স্বপ্ন ছিল আমি সাহায্য করব গরীব দুঃখীদের। আরে কী বলছি?
এটাতো আমার বলা উচিত না তবুও বললাম।

আমি টাকা উপার্জন করতে চেয়েছিলাম যা অসৎ পথ। আমি টিউশন করতাম তবু অনেক হতো। বড় ভাই বাবা মার কাছে আমি খুব দুঃখিত। আমি এমনি খুব ডিপ্রেশনে ছিলাম। আমি ক্লাস সিক্সে পড়ার সময় থেকে ডিপ্রেশনে আসি। আমি সেই ক্লাস টেন পর্যন্ত ভাল খেলাধুলা করেছি। বন্ধুবান্ধব পেয়েছি। তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। যখন কলেজে আসি তখন আমি ডিপ্রেসড থাকতাম। যার ফলে আমার প্যারালাইসিস হয়েছে। 

আমি মিথ্যে কথা বলতে পারতাম না যার জন্য বকা খেতাম বাড়িতে। আমার অত্যন্ত ভালোবাসা পেতাম মার কাছ থেকে। আমার মা আমাকে খাওয়া দাওয়া করিয়েছে অসুখের সময়। মাকে আমি ভুলতে পারব না। বাবা ও মা অনেক কিছু করে আমার জন্য।  যার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। জীবনটা নষ্ট হয়ে গেল। আমি মিথ্যা কথা বলতে পারতাম না। যদি না বলা শুরু করতাম ২০২১ সালে, তাহলে জীবন কতইনা ভালো হতো। এখন একটা মিথ্যা কাটতে আমাকে অনেক মিথ্যা বলতে হয়েছে।

আমি যদি বন্ধুবান্ধবদের সাথে * ভালোভাবে পারতাম তাহলে এটা হতো না। আমি রুমে থাকি। এজন্য আমার নিজেকে গুটিয়ে রাখতে ইচ্ছে করতো।

আমি ছোটভাইদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। আমি আপনাদের কাছে ক্ষমার একদম অযোগ্য তবুও আপনাদের সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। 

সবার কাছে আমি এখন ঘৃণার পাত্র। বাবা মাকে প্রণাম করে সবাইকে ছেড়ে গেলাম।  আমি বুঝেও না বুঝার মতো করেছি। যেতে হবে এখনই।

অনিক চাকমা

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়