Cvoice24.com

১ মাস ধরে উঠোনে রাত কাটান মহেশখালীর বৃদ্ধা

এস এম রুবেল, কক্সবাজার

প্রকাশিত: ১৩:৩৭, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩
১ মাস ধরে উঠোনে রাত কাটান মহেশখালীর বৃদ্ধা

দুয়ারে তালা। গেটে অসহায় বসে আছেন বৃদ্ধা আফজল

বাড়ির প্রধান দরজায় দুটো তালা। সিঁড়িতে বসে কাঁদছেন বৃদ্ধা আফজল খাতুন। যাকে সামনে পান তাকে ধরেই নিজের বাড়িতে ঢোকার আঁকুতি জানিয়ে যাচ্ছেন তিনি।  তার ঘরের দুয়ার খুলে দেওয়ার সাহসই পাচ্ছে না এলাকার কেউ। বিবাদের বিষয় অদ্ভূত।  ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা আফজল খাতুনের ঘর তালা দেওয়ার কারণ তার ছেলের বউয়ের বাবার পরিবারের সাথে বিবাদ হয়েছিল আবদুল আজিজের। সেই বিবাদের শোধ নিতে আবদুল আজিজ এমন কাণ্ড ঘটায়। ঘটনাটি ঘটেছে কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলাধীন হোয়ানক ইউনিয়নের মাঝের পাড়া গ্রামে। 

নিজের বাড়ি থেকে অবৈধভাবে প্রায় এক মাস উচ্ছেদ থাকার পর আজ শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) ভোরে মহেশখালী থানা পুলিশ তালা ভেঙ্গে বৃদ্ধাকে বাড়িতে প্রবেশের ব্যবস্থা করে। 

আফজল খাতুন প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, ছেলের বউয়ের বাপের বাড়ির সাথে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের মোকতার আহমদের ছেলে আবদুল আজিজ গত ২ মাস আগে এসে তার ছেলে সুমন ও ছেলের বউসহ নাতিকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এরপর তিনি একাই বাড়িতে থাকতেন। এতেও ক্ষান্ত হয়নি সে। ১ মাস আগে নিজের দলবল এনে টেনেহিঁছড়ে আফজল খাতুনকে বের করে দিয়ে তার বাড়িতে তালা লাগিয়ে দেন আবদুল আজিজ।

এরপর থেকে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারসহ গণ্যমান্য লোকদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন বৃদ্ধা। ভয়ে তাই তালা ভেঙ্গে বাড়িতে প্রবেশ করতে পারেননি তিনি। এলাকার কেউ তাকে সাহায্য করেনি। নিজের বাড়ি উঠোনে খোলা আকাশে রাত কাটাতেন তিনি।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য সেলিম সিকদার বলেন,  ‘বৃদ্ধার ঘরে তালা লাগিয়ে দেয়ার ঘটনা সত্য। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে বিচারের জন্য ডাকলেও তারা আসে না।’ তবে মহেশখালী নাগরিক আন্দোলনের সমন্বয়ক মনির উদ্দিন বৃ্দ্ধাকে দ্রুত আইনগত সহায়তা পেতে সাহায্য করেন। 

এ ব্যাপারে মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) তাজ উদ্দিন বলেন, ‘ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। আমরা জানতে পারার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে তালাবদ্ধ ঘর খুলে দিয়েছি। ভুক্তভোগী নারী যদি লিখিত অভিযোগ করেন আমার জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রৃত আইনগত ব্যবস্থা নের।’

সর্বশেষ