Cvoice24.com
corona-awareness

ভ্যাট দিয়ে পুরস্কার জিতলেন চট্টগ্রামের ১৬ জন

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:০৭, ১৪ জুন ২০২১
ভ্যাট দিয়ে পুরস্কার জিতলেন চট্টগ্রামের ১৬ জন

ভ্যাট আদায় নিশ্চিত করতে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে নগরের বিভিন্ন হোটেল, শপিংমল, বিউটি পার্লার, পোশাকের দোকান, জিমসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রায় চার’শ ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) মেশিন বসিয়েছে চট্টগ্রাম কাস্টম, এক্সাইস ও ভ্যাট কমিশনারেট। ইএফডি মেশিনের মাধ্যমে লেনদেন করলে অতি সহজেই ভ্যাট জমা হয়ে যাচ্ছে সরকারি কোষাগারে। এদিকে নাগরিকদের উৎসাহিত করতে ও ইএফডিতে লেনদেনের প্রবণতা বাড়াতে প্রতিমাসের ৫ তারিখে ইএফডি চালানের লটারি ঘোষণা করা হয়। ফলে নামমাত্র ভ্যাটের টাকা পরিশোধ করে লটারি জিতলেই মিলছে লাখ টাকা পুরস্কার।

গত ২৯ মে নগরের হোটেল গোল্ডেন ইনে রাত যাপন করে ইএফডি মেশিনে ৫০০ টাকা লেনদেনের সাথে ৪৩ টাকা ভ্যাট জমা দেন চট্টগ্রামের নাজিরহাটের বাসিন্দা নাসির উদ্দিন (৬০)। লটারিতে জিতে তার ভাগ্যে মিলেছে ১০ হাজার টাকা। 

সোমবার নগরের আগ্রাবাদ ভ্যাট অফিসে গিয়ে পুরস্কারও আদায় করলেন। ৫০০ টাকা খসিয়ে হাতে এখন ১০ হাজার টাকা, এ যেন আলাদিনের চেরাগ হাতে পেলেন তিনি।

শুধু নাসির উদ্দিন নয়, তার মত চট্টগ্রাম মহানগরের আগ্রাবাদ ডিভিশন থেকে ১৩ জন, চান্দগাও এলাকার ১ জন, পটিয়া উপজেলা থেকে ১ জনের ভাগ্যে মিলেছে এ পুরস্কার।

এর আগে চলতি বছরের ১০ মার্চ ইএফডি মেশিনে ভ্যাট দিয়ে ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কার জিতেছেন মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন ও মোহাম্মদ শাহজাহান নামের চট্টগ্রামের দুই ব্যবসায়ী।

চট্টগ্রামের ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন সিভয়েসকে বলেন, ইএফডি মেশিনের সাহায্যে মানুষ কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই লেনদেন করতে পারছেন। এতে একদিকে সরকারী কোষাগারে টাকা বাড়ছে। অন্যদিকে মানুষকে আরো বেশি উৎসাহিত করতে ভ্যাট চালানের বিপরীতে লটারি ঘোষণা করে যারা বিজয়ী হচ্ছেন তাদেরকে পুরস্কৃত করা হচ্ছে। আজও চট্টগ্রামের ১৬ জন বিজয়ীর হাতে ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়েছে। আমরা চাই গ্রাহক বাড়ুক, বেশি বেশি পুরস্কার জিতুক। সবাই ইএফডি মেশিনে লেনদেন করে ভ্যাট চালানটি সংরক্ষণ করে প্রতিমাসের ৫ তারিখে প্রকাশিত লটারি ড্রয়ের দিকে নজর রাখতে হবে।

ভ্যাট মেশিন আছে এমন প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নিলেই শুধু লটারির জন্য বিবেচনা করা হবে। ভ্যাট মেশিন যে রশিদ দেবে সে রশিদ নম্বর ধরেই লটারি বিজয়ীদের ঘোষণা করা হয়। প্রতিমাসে ১০১ জন লটারির মাধ্যমে পুরস্কার জিতেন। প্রথম পুরস্কার ১ লাখ টাকা, দ্বিতীয় পুরস্কার ৫০ হাজার টাকা, তৃতীয় পুরস্কার ৫ জন ২৫ হাজার টাকা করে এবং বাকি ৯৪ জনকে ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কৃত করা হয়।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়