Cvoice24.com

জাপানি গাড়ি-ক্রেনসহ নিলামে উঠছে ১২৪ লট পণ্যের

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:৪১, ১১ অক্টোবর ২০২১
জাপানি গাড়ি-ক্রেনসহ নিলামে উঠছে ১২৪ লট পণ্যের

চলতি বছরের সবচেয়ে বড় লটের নিলামের আয়োজন করেছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস। ল্যান্ড ক্রুজার, মার্সিডিজ বেঞ্জের মত দামি বিলাসবহুল গাড়ি, ক্রেন, টাগ বোর্ড, প্রাইম মুভার, স্কুটারসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের জাপানি ও ভারতের গাড়ির নিলাম আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এবারের নিলামে উঠছে ১২৪ লট পণ্য। এর আগে গত ২৯ সেপ্টেম্বর ৭৫ লট পণ্য নিলামে তোলা হয়েছিল। 

এবারের নিলামে ৬ কোটি ১৯ লাখ ৫ হাজার ৮৭২ টাকা মূল্যের সাদা রঙের টয়োটা ল্যান্ড ক্রইজার, ১ কোটি ২৪ লাখ ৬ হাজার ৫৬০ টাকার একটি থ্রি হুইলার গাড়ি, ১ কোটি ২ লাখ ৪৫ হাজার ২৭৮ টাকার একটি জার্মানি ভলক্স ওয়াগন কার, ৭১ লাখ ৪৯ হাজার ১১৯ টাকা মূল্যের কালো রঙের একটি মার্সিডিজ বেঞ্জ, ৫১ লাখ ৭৬ হাজার ৪১ টাকা মূল্যের ডিথ্রিএস মডেলের একটি ভারতীয় গাড়ি, ৩১ লাখ ২৫ হাজার ৪৩৫ টাকার সাদা রঙের জাপানি প্রাইম মুভার, ২৯ লাখ ৮২ হাজার ৯১৯ টাকা মূল্যের হলুদ রঙের প্রাইম মুভার, ২৩ লাখ ৭৮ হাজার ৭৬২ টাকা মূল্যের জাপানি টয়োটা মাইক্রোবাস, ২১ লাখ ৩৩ হাজার ৮৫৬ টাকা মূল্যের সাদা রঙের নিশান মাইক্রোবাস নিলামে তোলা হচ্ছে। 

তাছাড়া নিলামে উঠছে ৭১ লাখ ৯৮ হাজার ৩০৪ টাকার নিশান এটলাস পিক-আপ ভ্যান, ১৭ লাখ ৭০ হাজার ৬৩০ টাকার জাপানি প্রভোক্স গাড়ি, ১১ লাখ ২৬ হাজার ১১৫ টাকা মূল্যের টয়োটা কেএম-৭০ মডেলের জাপানি সাদা রঙের গাড়ি, ২০ লাখ ৩০ হাজার ৬৯ টাকা মূল্যের টয়োটা এনজেডই-১৪১ মডেলের সিলভার কালারের জাপানি গাড়ি, ২ লাখ ১৭ হাজার ৫ টাকা মূল্যের সাদা রঙের স্কুটার, ৭৯ লাখ ৮১ হাজার ৪৫৬ টাকার ক্রেন, ৬৩ লাখ ৩৪ হাজার ৪৮৯ টাকার হলুদ কালারের একটি জাপানি ক্রেন, ৩৪ লাখ ৪৮ হাজার ৭৭৭ টাকার হলুদ কালারের চায়নিজ ক্রেন, ১ কোটি ৭৩ লাখ ৮৫ হাজার ১২১ টাকার টাগ বোর্ড। 

এছাড়াও সালফিউরিক এসিড, টেক্সটাইল কেমিক্যাল, ড্রাগণ ফল, ফেব্রিক্স পণ্য, প্লাস্টিক হ্যাঙ্গার, জিংক অক্সাইড, রেডিম্যাড গার্মেন্টস পণ্য, জেন্টস আন্ডারওয়্যার, পেপার ট্যাগ, ল্যাবরেটরি পণ্য, হ্যান্ড গ্লোভস, ফ্লোর ম্যাট, অ্যালুমিনিয়াম পাউডার কটন ড্রকর্ড, পুস্তক, জংধরা ছিদ্রযুক্ত ড্রাম, নাইলনের রোপ, ওয়্যার রোপ, স্ট্যান্ড ও ওয়াল ফ্যান, কার্বনেটেড ক্যান ড্রিংকস লেভেল, কসমেটিক পণ্য, জুস, এলাচ, স্টাবলাইজার পণ্য, চকলেট, সাইক্লো হেক্সানোয়ান, বেবি ডায়াপার, পলি প্রপিলেন, মেটাল এংগেল, জুতা, লেইস ফিতা, পলেস্তার, ভিনেগার, হ্যান্ড স্যানিটাইজার পণ্য, বাচ্চাদের খেলনা, গ্রে হ্যারিনা শ্রিম্প, খেঁজুর, গৃহস্থালি পণ্য, এমপিইটি ফিল্ম, জুতা, সুইচ সকেট, ওটস, বনেট, স্টিল রেক, বাইসাইকেল পার্টস, ইলেকট্রিক বেহিক্যালস, ন্যাচারাল স্লেইট স্টোন, টু হুইলার লিফট, সিরামিক পণ্য, টাইলস, ট্রান্সফরমার ওয়েল, তেল, গৃহস্থালি পণ্য ওয়াশিং মেশিন, ফিনল সলিড, জন্তুর চর্বি, আই গ্লাস ফ্রেম, ব্যাডমিনটন কর্ক, ওয়াপার পিউরিফাইয়িং ফিল্টার, ফিল্টার হাউসিং, এয়ার কমপ্রেসার, আয়রন রোপ, আইরন স্ক্যাপ, আয়রন প্লেট, ওয়্যার রোপ নিলামে তোলা হচ্ছে।

চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের তথ্যমতে, আসন্ন নিলামে ১৫২ কেজি সালফিউরিক এসিড, ৩ কেস টেক্সটাইল কেমিক্যাল, ৩৯ লাখ ৫০ হাজার ৪৩৭ টাকা মূল্যে ১৫ হাজার ৫শ কেজি ড্রাগণ ফল, ৪ হাজার ৯২৭ রোল ফেব্রিক্স পণ্য, ৬২ কার্টন প্লাস্টিক হ্যাঙ্গার, ২০ ব্যাগ জিংক অক্সাইড, ৩১ হাজার ২০৫ টাকা মূল্যের রেডিম্যাড গার্মেন্টস পণ্য, ১৯৫ কার্টন জেন্টস আন্ডারওয়্যার, ৭ কার্টন পেপার ট্যাগ, ১ কার্টন ল্যাবরেটরি পণ্য, ৭৪ কার্টন হ্যান্ড গ্লোভস, ৫৭০ রোল ফ্লোর ম্যাট, ৭৬২ ব্যাগ অ্যালুমিনিয়াম পাউডার, ৩ কার্টন কটন ড্রকর্ড, ৩৪ হাজার ৮৫৬ টাকার পুস্তক, ৯১ পিস জংধরা ছিদ্রযুক্ত ড্রাম, ৩ লাখ ১৭ হাজার ৪৮৩ টাকার নাইলনের রোপ, ৫২ হাজার ৯১৩ টাকা মূল্যের ওয়্যার রোপ, ১৮ পিস স্ট্যান্ড ও ওয়াল ফ্যান, ২ হাজার ২৭২ কার্টন কার্বনেটেড ক্যান ড্রিংকস লেভেল, ৮ হাজার ৯৮৫ পিস কসমেটিক পণ্য, ১৩ হাজার ৫৫০ কার্টন জুস, ১৫শ কার্টন এলাচ, ৩শ ড্রাম স্টাবলাইজার পণ্য, ১ হাজার ৫৫ বক্স চকলেট নিলামে তোলা হচ্ছে।

তাছাড়া ১৮ লাখ ৪ হাজার ৫৫৫ টাকা মূল্যের ৮০ ড্রাম সাইক্লো হেক্সানোয়ান, ৪৯ লাখ ৬৫ হাজার ২৬১ টাকার ভারতীয় বেবি ডায়াপার, ৮ হাজার ৩২০ ব্যাগ পলি প্রপিলেন, ১ কোটি ১৮ লাখ ৭৪ হাজার ৭১১ টাকার মেটাল এংগেল, ৩১ লাখ ৮৫ হাজার ৭৫৭ লাখ টাকার জুতা, ১৫ কার্টন লেইস ফিতা, ১ কোটি ৩৭ লাখ ৮৫ হাজার ৯৫৯ টাকার পলেস্তার, ৬ হাজার ৪৮ লিটার ভিনেগার, ১ হাজার ৩২৭ কার্টন হ্যান্ড স্যানিটাইজার পণ্য, ২ হাজার ৮০৯ কার্টন বাচ্চাদের খেলনা, ৮৫৭ কার্টন গ্রে হ্যারিনা শ্রিম্প, ৮ লাখ ৭৫ হাজার ৬৭ টাকার খেঁজুর, ২৪৮ স্ল্যাব গৃহস্থালি পণ্য, ৫৩ হাজার কেজি এমপিইটি ফিল্ম, ১১ হাজার ৩৩৮ জোড়া জুতা, ১শ কার্টন সুইচ সকেট, ৫২০ ব্যাগ ওটস, ৩৪৬ পিস মরিচা পড়া বনেট, ৬৫০ কেজি ওজনের স্টিল রেক, ১ কোটি ৫৩ লাখ ৯৩ হাজার ৭১৯ টাকার বাইসাইকেল পার্টস, ৮৭ ইউনিট ইলেকট্রিক বেহিক্যালস, ৩৬ লাখ ৫০ হাজার ৬৭৯ টাকার ন্যাচারাল স্লেইট স্টোন, ১১ লাখ ৯৯ হাজার ৮৮৮ টাকার টু হুইলার লিফট, ৪৩ কার্টন সিরামিক পণ্য, ২৩০ কার্টন টাইলস, ৮ ড্রাম ট্রান্সফরমার ওয়েল, ১ ড্রাম হাইড্রলিক তেল, ৪শ পিস গৃহস্থালি পণ্য, ৯ হাজার ৭৫৮ টাকার ওয়াশিং মেশিন, ৩৬ ড্রাম ফিনল সলিড, ২২ ড্রাম জন্তুর চর্বি, ৭ হাজার জোড়া আই গ্লাস ফ্রেম, ৬ হাজার পিস ব্যাডমিনটন কর্ক, ১৬ হাজা্র ৮শ পিস ওয়াপার পিউরিফাইয়িং ফিল্টার, ৪২০ পিস ফিল্টার হাউসিং, ৩০৪ কেজি এয়ার কমপ্রেসার, ৫৩০ কেজি আয়রন রোপ, ৯ টন আইরন স্ক্যাপ, ৫শ কেজি আয়রন প্লেট, ১১শ ৩০ মিটার ওয়্যার রোপ পণ্য উঠছে নিলামে। 

সরকারি নিলাম পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স কে এম করপোরেশন বরাবরের মতো এই নিলাম পরিচালনা করছে। প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার মোহাম্মদ মোরশেদ সিভয়েসকে বলেন, আজ রোববার (১০ অক্টোবর) থেকে নিলামের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। নিলামে অংশ নিতে হলে ১০ অক্টোবর থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত অফিস চলাকালীন সময়ে ২শ টাকা দরে ক্যাটালগ ও ১শ টাকা দরে দরপত্র সংগ্রহ করা যাবে। আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টার মধ্যে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের রাজস্ব কর্মকর্তা (প্রশাসন) ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে টেন্ডার বক্সে দরপত্র জমা দিতে হবে। পাশাপাশি আগামী ১১, ১২ ও ১৩ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত বিক্রয়যোগ্য পণ্য পরিদর্শন করতে পারবেন বিডাররা।

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের উপ-কমিশনার (নিলাম শাখা) আলী রেজা হায়দার সিভয়েসকে বলেন, বন্দরে কনটেইনার জট এড়াতে প্রতিমাসে দুই থেকে তিনটি নিলাম ডাকার চেষ্টা করা হয়। এবারের নিলামটি তুলনামূলক বড়। আগামী ১৭ অক্টোবর বেলা আড়াইটায় ১২৪ লট পণ্যের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে গত ২৯ সেপ্টেম্বর ৭৫ লট পণ্য নিলামে তোলা হয়েছিল। 

প্রসঙ্গত, বিদেশ থেকে আনা বিভিন্ন পণ্য খালাস করেন না আমদানিকারকরা। পাশাপাশি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনতে গিয়ে কায়িক পরীক্ষায় আটক করা হয়। নিয়মনুযায়ী তাদের ৩০ দিনের মধ্যে এসব পণ্য খালাসের নির্দেশ দিয়ে নোটিশ দেওয়া হয়। নোটিশ দেওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে পণ্য খালাস না নিলে এসব পণ্য নিলামে তোলে কাস্টমস হাউস কর্তৃপক্ষ।

-সিভয়েস/টিএম

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়