Cvoice24.com

বেড়েছে ডিমের দাম, স্থিতিশীল মাছ-সবজি

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১০:৫৪, ১৪ জানুয়ারি ২০২২
বেড়েছে ডিমের দাম, স্থিতিশীল মাছ-সবজি

নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের বাজারে মিলছে না স্বস্তি। প্রতিদিনই বাড়ছে কোন না কোন পণ্যের দাম। ভরা মৌসুমেও সবজি বিক্রি হচ্ছে আগের চড়া দামেই। মাছের বাজারেও দেখা গেল আগের চিত্র। সেই সাথে ডজনপ্রতি ডিমেও বেড়েছে ১০ টাকা। 

২০২১ সাল জুড়ে ভোগ্যপণ্যের বাড়তি দরে ভুগেছে সাধারণ ভোক্তারা। এদিকে নতুন বছরেও মিলছে না কোন স্বস্তির খবর। একটি পণ্যের দাম কমলে, দুটির বাড়ে- এমনটাই জানলেন ক্রেতাসাধারণ। আয়ের চেয়ে কয়েক গুণ বাড়তি ব্যয়ের বোঝা টানতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। বাড়তি পণ্যের দামে ক্ষোভও প্রকাশ করছেন অনেকেই।

সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) নগরের কাজীর দেউড়ি ও রিয়াজউদ্দীন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে শীতের সবজির সরবরাহে ঘাটতি নেই। তবুও আগের বাড়তি দরে প্রতিকেজি টমেটো ৩০ থেকে ৪০, শিম ও বেগুন ৪০ থেকে ৫০, ফুলকপি ৩০, গাজর ৪০, শসা ৩০, মিষ্টি কুমড়া ৩০ থেকে ৪০, কাঁচা মরিচ ৫০ থেকে ৬০, পেঁপে ২৫ থেকে ৩০, ব্রুকলি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রিয়াজউদ্দীন বাজারে সবজি বিক্রেতা মোজাম্মেল বলেন, সবজির সরবরাহ কম নেই। তবুও দাম বাড়তি। আমাগো সবজি আনতে গিয়া বাড়তি খরচ গুণতে হয়। তাই বাড়তি দামে না বেচলে পোষায় না। 

এদিকে ডজনপ্রতি ডিমে বেড়েছে অন্তত ১০ টাকা। গত সপ্তাহে ৯৫ টাকায় ডজনপ্রতি বিক্রি হওয়া ডিম আজ ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সেই সাথে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৬০ টাকা, লেয়ার ২৪০, সোনালী ২৮০ থেকে ৩শ ও দেশি মুরগি ৪৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে খুচরা বাজারে প্রতিকেজি মিনিকেট ৬০, আটাশ ৪৮, পারিজা ৪৬, নাজিরশাইল ৬৪, বাসমতি ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। 

বাজারে আগের চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে মাছ। প্রতিকেজি রুই-কাতলা ২৮০ থেকে ৩শ, শোল ৫৫০, শিং ও টাকি ৩৫০, তেলাপিয়া ও পাঙ্গাস ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কাজীর দেউড়ি বাজারে কথা হয় স্কুল শিক্ষক মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের সাথে। ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি বলেন, কোন কিছুতেই আমরা সাধারণ মানুষ স্বস্তি খুঁজে পাচ্ছি না। সব পণ্যের দামই আকাশছোঁয়া। এক হাজার টাকার বাজারে ব্যাগ ভরে না। জনগণের জন্যই তো সরকার। তাই নিত্যপণ্যের বাজার স্থিতিশীল অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সঠিক ব্যবস্থা নিতে সরকারের কাছে দাবি জানাই।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়