Cvoice24.com

চট্টগ্রামজুড়ে ৬ দফা বিধিনিষেধ; বাণিজ্য মেলায় ছাড়!

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:৫৫, ২০ জানুয়ারি ২০২২
চট্টগ্রামজুড়ে ৬ দফা বিধিনিষেধ; বাণিজ্য মেলায় ছাড়!

মুখে মাস্ক ছাড়াই ঘুরে বেড়াচ্ছেন দর্শনার্থীরা।

করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকির মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই চিটাগাং উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত সিএমএসএমই বাণিজ্য মেলায়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে মেলার কার্যক্রম চালানোর অনুমতি দিলেও এসবে গরজ নেই আয়োজকদের।

মেলার টিকিট কাউন্টারে বিক্রেতার মুখেই মাস্ক নেই

বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) নগরের আমবাগান এলাকায় শহীদ শেখ রাসেল পার্কে আয়োজিত বাণিজ্য মেলায় ঘুরে দেখা যায়, মেলার প্রবেশমুখে একপাশে সারি সারি হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা হয়েছে। তবে সেই স্যানিটাইজার দর্শনার্থীদের আগলে দিতে নেই কোন স্বাস্থ্যবিধি। তাপমাত্রা মাপতে রাখা হয়নি কোন থার্মাল স্ক্যানারও। সামাজিক দূরত্ব তো দূরের কথা মেলার ভেতরে দর্শনার্থীদের কারো মুখে ছিল না মাস্ক।

স্টলে বিক্রেতাদের মুখেও দেখা মিলেনি মাস্কের

মুখে মাস্ক নেই কেন জানতে চাইলে নারী উদ্যোক্তা নিলুফার বেগম বলেন, মানুষের আনাগোনা না থাকলে তখন অল্প সময়ের জন্য মাস্ক খুলে রাখি। সারাক্ষণ তো মাস্ক পরে থাকা যায় না। তার মানে এটা নয় যে আমরা নিয়ম মানছি না। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি। পাশাপাশি ক্রেতাসাধারণকেও তা মেনে চলতে উদ্বুদ্ধ করছি। 

পরিবার নিয়ে মেলায় ঘুরতে আসেন প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান। তিনি সিভয়েসকে বলেন, মেলায় কোন ধরণের সুরক্ষাসামগ্রীর ব্যবস্থা করা হয়নি। বিক্রির জন্য আনা পণ্যগুলোও খুব একটা মানসম্মত মনে হয়নি। এই মেলার মাধ্যমে নারী উদ্যোক্তারা নিজেদের সৃজনশীলতার প্রকাশ ঘটাতে পারেন। এটা ভালো দিক। কিন্তু আয়োজনের ব্যাপারে ঘাটতি ছিল। ভেতরে কোন স্বেচ্ছাসেবক দল নেই যারা সামাজিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়টি দেখভাল করবে। 

স্ত্রীর জন্য চুড়ি কিনছিলেন মিনহাজ। তিনি বলেন, প্রবেশ পথে কোন স্যানিটাইজার বা থার্মাল স্ক্যানার চোখে পড়েনি। এখন চারপাশে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। কে করোনা আক্রান্ত আর কে সুস্থ কোন কিছুই বোঝার উপায় নেই। বিষয়টির প্রতি কর্তৃপক্ষের আরো জোর দেয়া উচিত। 

চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টি’র সভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী বলেন, এই মেলার মাধ্যমে আমাদের দুইশোর বেশি নারী উদ্যোক্তা তৈরি পোশাক, হস্তশিল্প, বাসাবাড়ি সজ্জা, জুতাসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য প্রদর্শনের সুযোগ পাচ্ছেন। সিএমএসএমই খাতের উদ্যোক্তারা এ মেলার মাধ্যমে তাদের ব্যবসা বাণিজ্যকে পুনরুজ্জীবিত করার চেষ্টা করছেন। মেলায় আমাদের দুইশো স্টল রয়েছে। আমরা আয়োজনের কমতি রাখিনি। নিরাপত্তা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে আমরা কঠোরভাবে নির্দেশনা দিয়েছি। প্রতিনিয়ত এ ব্যাপারে বলে যাচ্ছি। 

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (স্টাফ অফিসার টু ডিসি) পিযুষ কুমার চৌধুরী সিভয়েসকে বলেন, অর্থনৈতিক বিষয় জড়িত থাকায় বাণিজ্য মেলা চলবে, তবে অবশ্যই সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এটা মেলার আয়োজনে যারা জড়িত আছেন তাদেরকে নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের কাজ হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে কিনা তা মনিটরিং করা। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে অথবা অনিয়মের অভিযোগ পেলে অবশ্যই আমরা সেখানে যাবো। অনিয়ম পেলে আইন মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

এদিকে করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন সংক্রমণ রোধে ৬ দফা বিধিনিষেধ জারি করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসনের ছয় দফা বিধিনিষেধ

১। দোকান, শপিংমল ও বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতা এবং হোটেল-রেস্তোরাঁসহ সকল জনসমাগমস্থলে বাধ্যতামূলকভাবে সবাইকে মাস্ক পরিধান করতে হবে। অন্যথায় তাকে আইনানুগ শাস্তির সম্মুখীন হতে হবে।
২। অফিস-আদালতসহ ঘরের বাইরে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। 
৩। রেস্তোরাঁয় বসে খাবার গ্রহণ এবং আবাসিক হোটেলে থাকার জন্য অবশ্যই করোনার টিকা সনদ প্রদর্শন করতে হবে।
৪। ১২ বছরের ঊর্ধ্বে সকল ছাত্র-ছাত্রীকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক নির্ধারিত তারিখের পরে টিকা ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হবে না। 
৫। সর্বপ্রকার যানের চালক ও সহকারীদের আবশ্যিকভাবে কোভিড-১৯ টিকাসনদ থাকতে হবে।
৬। কোভিড আক্রান্তের হার ক্রমবর্ধমান হওয়ায় উন্মুক্ত স্থানে সর্বপ্রকার সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান এবং সমাবেশসহ পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখতে হবে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়