Cvoice24.com

চুয়েটে ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে সাংবাদিকদের উপর ছাত্রলীগের হামলা

রাউজান প্রতিনিধি 

প্রকাশিত: ২২:০৯, ১৭ নভেম্বর ২০২২
চুয়েটে ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে সাংবাদিকদের উপর ছাত্রলীগের হামলা

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে হেনস্থা এবং সাংগঠনিক সম্পাদককে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির উপ গণ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আইদিদ আলমের  আলমের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে তারই নেতৃত্বে প্রায় ২০ থেকে ২৫ জনের একটি দল বুধবার এই হামলা চালায়। এদিকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে অস্বীকার করেন অভিযুক্ত আইদিদ আলম।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে চলমান বেপরোয়া মাদক সেবনের বিরুদ্ধে গত মঙ্গলবার চুয়েট সাংবাদিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. গোলাম রব্বানী সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক লেখেন। তার লেখায় ক্ষুব্ধ হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির উপ গণ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আইদিদের নেতৃত্বে প্রায় দশ জনের একটি দল বুধবার দুপুরে সমিতির সভাপতি জিওন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক সায়েদ চৌধুরীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বরে ডেকে আটকে রেখে গালাগালি ও হেনস্থা করে। এসময় তারা বারবার ছাত্রলীগের পরিচয় ব্যবহার করে সাংবাদিক সমিতির নেতাদের দেখে নেওয়ার হুমকি দিতে থাকে। পাশাপাশি সাংবাদিক সমিতির কেউ যদি ভবিষ্যতে মাদকের বিরুদ্ধে লেখালেখি করে তাহলে তার জীবনের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে বলে তারা হুঁশিয়ার করতে থাকে। 

এই অভিযোগকে অস্বীকার করে আইদিদ আলম বলেন, এমন কিছু তো হয়নি। সাংবাদিক সমিতির সঙ্গে কোনো সমস্যা নাই। আমাদের একজন জুনিয়র শিক্ষার্থী, ও একটা কমেন্ট করেছে মেয়েদের নিয়ে। সেটা নিয়ে ওকে বলা হয়েছে ভাই এগুলো করিস না, কেন করছিস। ক্যাম্পাসে ছেলেও আছে, মেয়েও আছে। এইটুকু বলেছি।

এদিকে বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) বিকেলে চুয়েটের কয়েকজন শিক্ষার্থীর অভিযোগ পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল হারুন। তবে বিষয়টি চুয়েট কর্তৃপক্ষই দেখছেন বলেও তিনি জানান। 

সাংবাদিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম রব্বানী বলেন,  বেলা চারটার দিকে তারা আমাকে ডাকে। প্রথমে আমার থেকে ফোন কেড়ে নেয় ও হেনস্থা করতে থাকে। পরবর্তীতে মো. আইদিদ আলম, মো. ইমরান হাসান মুরাদ ও শেখ নাহিয়ান তার উপর ঝাপিয়ে পড়ে এলোপাতাড়ি ভাবে মারধর করে। 

এ ঘটনার বিচার চেয়ে আজ বৃহস্পতিবার চুয়েট সাংবাদিক সমিতি একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ডোপ টেস্ট ও শারীরিক নির্যাতনকারী তিনজনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারর দাবি জানায়। এরপর সকালে  তারা জড়িতদের বহিষ্কারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের পরিচালক বরাবর একটি আবেদনপত্র জমা  দেয়।

অভিযোগপত্র গ্রহণ করে পরিচালক আরও বলেন,ছাত্রকল্যাণ দপ্তর বিষয়টি খতিয়ে দেখার পর প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। আমি বিষয়টি ছাত্রকল্যাণ পরিচালককে আজই জানাবো৷ অভিযোগ খতিয়ে দেখে আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। 

চুয়েট ক্যাম্পের ইনচার্জ উপপরিদর্শক আরিফুর রহমান বলেন,‘থানায় অভিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে শুনেছি। এখনো অভিযোগ পত্র হাতে পাইনি। ঘটনাটি সাংবাদিক-ছাত্রলীগের মধ্যে নয়। শিক্ষার্থীদের দুই গ্রুপের মধ্যে ফেইসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে ঘটেছে বলে জেনেছি। 

এবিষয়ে চুয়েট ছাত্র কল্যাণ পরিষদের পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘আমি শুনেছি সাংবাদিক সমিতির রাব্বানী মাদক বিরোধী স্ট্যাটাস দিয়েছিল। যারা সংক্ষুব্ধু হয়েছে তারা সাংবাদিক সমিতির কয়েকজনকে ডেকেছিল, মারধর করেছে বলে আমাদের কাছে অভিযোগ করেছেন। গায়ে হাত দেওয়া নিন্দনীয়। যারা সাংবাদিকতা করেন তারাওতো আমাদের স্টুডেন্ট,বাইরের কেউ না। কেউ যদি সংক্ষুব্ধ হন, তাহলে কর্তৃপক্ষকে বলবে। গায়ে হাত দেওয়া তো অন্যায়।’

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়