Cvoice24.com

রুপোলি পর্দার তারকাদের ভোটবাক্সে চমক 

সিভয়েস বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:৩৫, ৩ মে ২০২১
রুপোলি পর্দার তারকাদের ভোটবাক্সে চমক 

জুন মালিয়া, অদিতি মুন্সী ও লাভলী মৈত্র

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন একঝাঁক তারকা। সেই সঙ্গে তারা পেয়ে যান ভোটেরও টিকিট। তবে রাজনীতির ময়দানে সদ্য পা রাখা বহু তারকা প্রার্থীর জয় নিয়েই সন্দিহান ছিলেন অনেকে। তাদের ‘আনকোরা’ তকমাও জুটেছিল। উল্টো ভোটবাক্সে চমক দিয়েছেন বেশ কয়েকজন। 

চিরঞ্জিত চক্রবর্তী
পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে বারাসাত কেন্দ্র থেকে জয়ের হ্যাট্রিক করলেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ও তৃণমূল প্রার্থী চিরঞ্জিত চক্রবর্তী। ২৩ হাজারেরও বেশি ভোটে জয়ী হয়েছেন এই তারকা প্রার্থী।   

রাজ চক্রবর্তী
টালিউডের একের পর ব্লকবাস্টার সিনেমা উপহার দেওয়া রাজ চক্রবর্তী নির্বাচনের মাঠও মাতালেন। তারকা এ পরিচালক বিপুল ভোটে জয় পেয়েছেন তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে। উত্তর চব্বিশ পরগণার ব্যারাকপুরে লড়েন তিনি। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে ২৩ হাজার ৫৫০ ভোট বেশি পেয়ে তিনি নির্বাচিত হন।

সোহম চক্রবর্তী
পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা ভোটের মাঠ চিত্রনায়ক সোহমের কাছে নতুন নয়। পাঁচ বছর আগে তাকে সেখানকার বড়জোড়া এলাকার প্রার্থী করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দল জিতলেও তিনি হেরেছিলেন। এবার তাই কোমর বেঁধে নেমেছিলেন সোহম। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পূর্ব মেদিনীপুরের চণ্ডীপুরের গ্রামীণ এলাকা চষে বেড়ান। ফলও এসেছে হাতেনাতে। জয় পেয়েছেন অভিনেতা সোহম চক্রবর্তী। 

কাঞ্চন মল্লিক
টালিউডের কমেডিয়ান কাঞ্চন মল্লিক প্রথমবার রাজনীতিতে নাম লেখিয়েছেন। আর তৃণমূলে যোগ দিয়েই উত্তরপাড়ার টিকিট পেয়ে যান তিনি। কাঞ্চনের প্রতিপক্ষ ছিলেন বিজেপির প্রবীর ঘোষাল। মমতার মান রেখেছেন কাঞ্চন। জিতেছেন ১৬ হাজার ৫৫৩ ভোটে।

জুন মালিয়া
টালিউড অভিনেত্রী জুন মালিয়া গত মার্চেই যোগ দেন তৃণমূলে। রাজনীতিতে নাম লেখিয়েই মেদেনিপুর আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নেন এই অভিনেত্রী। পর্দার জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী নির্বাচনে ভোটারদের মন জয় করে বিজয় নিয়েই ফিরলেন ঘরে। প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপির সমিত কুমার দাসকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিধানসভায় পা রাখতে যাচ্ছেন জুন মালিয়া। তিনি পেয়েছেন মোট ৮৮ হাজার ৪১৫ ভোট।

অদিতি মুন্সী
সদ্য রাজনীতির মাঠে নাম লিখিয়েছেন সারেগামাপা তারকা অদিতি মুন্সী। রাজনীতিতে যোগ দিয়েই পেয়ে যান তৃণমূলের টিকিট। রাজারহাট-গোপালপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে তাকে প্রার্থী করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই আসনে বিজেপির প্রার্থী ছিলেন শমীক ভট্টাচার্য। অন্যদিকে বাম-কংগ্রেস-ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের (আইএসএফ) পক্ষে সিপিআইএমের শুভজিৎ দাশগুপ্ত। তবে রাজনীতিতে নতুন হলেও তিনি জয় পেয়েছেন। জিতেছেন ৫৬ হাজার ৩২৪ ভোটে।

লাভলী মৈত্র
স্টার জলসায় ‘জল নূপুর’ সিরিয়ালে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা পান লাভলী মৈত্র। এবারের নির্বাচনে তিনি তৃণমূলের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে চমক দেখিয়েছেন। সোনারপুর দক্ষিণে বিজেপি প্রার্থী অঞ্জনা বসুকে হারিয়ে জিতেছেন তৃণমূলের তারকা প্রার্থী লাভলী মৈত্র। ভোট পেয়েছেন ৬১ হাজার ৬৭১টি।
 
হিরণ চট্টোপাধ্যায়
ছিলেন মমতা-শিবিরে। তবে একুশের বিধানসভা ভোটের আগে তৃণমূলের উপর যাবতীয় ক্ষোভ উগড়ে মোদি-শিবিরে যোগ দেন। পদ্মবনে যাওয়ার পরই দিলীপ ঘোষ-গড় খড়্গপুর সদর কেন্দ্রে নির্বাচনী টিকিট পেয়ে কটাক্ষেরও শিকার হয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী হিরণ চট্টোপাধ্যায়। নির্বাচনী প্রচারের ময়দানে তাকে নিয়ে ট্রলও কম হয়নি। তবে ভোট হিসাবে যাবতীয় ক্ষোভ-বিক্ষোভ, ট্রল-সমালোচনার জবাব দিলেন হিরণ। তৃণমূলের পোড় খাওয়া প্রার্থী প্রদীপ সরকারকে প্রায় ৩ হাজারেরও বেশি ভোটে হারিয়ে গেরুয়া-শিবিরে তিনিই এখন হিরো। কেননা বিজেপির অন্য তারকা প্রার্থীদের প্রায় সবাই হেরেছেন, সেখানে তার এই জয় খানিকটা স্বস্তি এনে দিয়েছে পদ্ম শিবিরে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়