Cvoice24.com

মমতাকে কটাক্ষ, কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:৪০, ৪ মে ২০২১
মমতাকে কটাক্ষ, কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিনেত্রী কঙ্গনা রনৌত

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার দিন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যাকে নিয়ে একের পর এক কটূক্তি করে আসছিলেন বলিউডের বিতর্কিত অভিনেত্রী কঙ্গনা রনৌত। তার পরিপ্রেক্ষিতে টুইটারের নিয়মবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এই তারকার অ্যাকাউন্ট।

এর আগে রবিবার (২ এপ্রিল) নির্বাচনের ফল ঘোষণার দিন কঙ্গনা টুইটারে বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গাদের সবচেয়ে বড় শক্তি হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম উল্লেখ করেন। একইসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গকে কাশ্মীরের সঙ্গে তুলনা করেন তিনি।

পশ্চিমবাংলায় ভোটের ফল প্রকাশের দিন টুইটারে বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গাদের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে বড় শক্তি হিসেবে ব্যাখ্যা করেছিলেন বি-টাউনের ‘কন্ট্রোভার্সি ক্যুইন’। শুধু তাই নয়, বাংলাকে কাশ্মীরের সঙ্গেও তুলনা করেন কঙ্গনা। টুইটারে কঙ্গনা লেখেন, ‘বাংলাদেশি আর রোহিঙ্গারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে বড় শক্তি…। যা ট্রেন্ড দেখছি তাতে বাংলায় আর হিন্দুরা মেজরিটিতে নেই এবং তথ্য অনুযায়ী গোটা ভারতবর্ষের তুলনায় বাংলার মুসলিমরা সবচেয়ে গরীব আর বঞ্চিত। ভাল, আরেকটা কাশ্মীর তৈরি হচ্ছে।’ এখানেই থামেননি তিনি। ফলপ্রকাশের পর আরও বেশকিছু টুইট করেন কঙ্গনা।

মঙ্গলবার (৪ মে) সকালেই আরেকটি পোস্ট দিয়ে তাতে কঙ্গনা লেখেন, সেই তুলনা করা তার ঠিক হয়নি। তারপরই পশ্চিমবাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসার ছবি তুলে ধরার চেষ্টা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে আবেদন জানান, বিষয়টি নিয়ে কড়া পদক্ষেপ করতে। এমনকী মমতাকে ভোটে জিতিয়ে ক্ষমতায় আনার জন্য পশ্চিমবাংলার ভোটারদেরও তীব্র কটাক্ষ করেন কঙ্গনা। তার টুইটের ভাষা এবং ভিডিও অত্যন্ত হিংসাত্মক। যা সাম্প্রদায়িক উসকানি দিচ্ছে এবং অশান্তি ছড়াচ্ছে। এই অভিযোগেই সাসপেন্ড করা হল কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্টটি।

উল্লেখ্য, বাংলায় হিংসা আর অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টার অভিযোগে ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন হাই কোর্টের আইনজীবী সুমিত চৌধুরী। বিজেপিকে সমর্থন জানাতে গিয়ে বাংলার মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরির চেষ্টা করছেন বলিউড অভিনেত্রী বলে দাবি তার। ই-মেল মারফত কঙ্গনার বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেছেন তিনি। সব মিলিয়ে বেশ বিপাকে অভিনেত্রী।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়