Cvoice24.com

বন্ধু দিবসের পেছনের গল্প

ফিচার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:২৪, ৭ আগস্ট ২০২২
বন্ধু দিবসের পেছনের গল্প

ছবি: সংগৃহীত

বন্ধুত্ব মানে বয়সের সাথে বয়সের মিল নয়, বন্ধুত্ব মানে মনের সাথে মনের, গোপনে হয়ে যাওয়া পরিচয়। আজ বন্ধু দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই বাংলাদেশেও বন্ধু দিবস পালিত হয়। বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন তারিখে বন্ধু দিবস পালন করা হলেও বাংলাদেশে আগস্টের প্রথম রবিবার দিবসটি পালন করা হয়। 

কিন্তু কখনো ভেবে দেখেছেন কি, কেন এই বন্ধু দিবস? বন্ধুত্বের শুরুটা পৃথিবীর শুরু থেকে হলেও বন্ধু দিবস শুরুর ইতিহাস খুব একটা পুরোনো নয়। মাত্র এক শতক আগে এর প্রচলন হয়েছিল। চলুন জেনে নেওয়া যাক বিস্তারিত-

বন্ধু দিবসের পরিকল্পনা ও উৎপত্তি হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে। ১৯১৯ সালের আগস্ট মাসের প্রথম রোববার  সর্বপ্রথম ‘বন্ধু দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়েছিল সেখানেই। এরপর তারা নিজেদের মধ্যে কার্ড ও উপহার বিনিময় করতো। বন্ধু দিবসের শুরুটা হয়েছিল এভাবেই।

দ্বিতীয়ত আরেকটি প্রচলিত মত হলো, ১৯৩৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র সরকার এক ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ হয়েছিল। সেই ঘটনার প্রতিবাদে পরদিন ওই ব্যক্তির এক বন্ধু আত্মহত্যা করেন। দিনটি ছিল আগস্ট মাসের প্রথম রোববার। বন্ধুর জন্য বন্ধুর আত্মত্যাগের প্রতি সম্মান জানাতে মার্কিন কংগ্রেস ১৯৩৫ সালের আগস্ট মাসের প্রথম রোববারকে ‘বন্ধু দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। যা পরবর্তীতে পালিত হতে থাকে। এরপর অনেক দেশই বন্ধু দিবস পালন করা শুরু করে।

এরপর থেকে জীবনের নানা ক্ষেত্রে বন্ধুদের অবদানের প্রতি সম্মান জানাতে আমেরিকান কংগ্রেসে ১৯৩৫ সালে আগস্টের প্রথম রোববারকে বন্ধু দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

আরও জানায়, ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই ‘বিশ্ব বন্ধু দিবস’র প্রস্তাব করেন ড. আর্টেমিও ব্র্যাচো। যখন তিনি তার বন্ধুদের সাথে নদী তীরবর্তী শহর পুয়ের্তো পিনাস্কোতে বসে ডিনার করছিলেন।

১৯৯৭ সালে জাতিসংঘ বিশ্বময় বন্ধুত্বের আলাদা অবস্থানে নিজেদের নিয়ে যায়। ফলে ২০১১ সালের ২৭ এপ্রিল জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ৩০ জুলাইকে অফিসিয়াল ইন্টারন্যাশনাল ফ্রেন্ডশিপ ডে ঘোষিত হয়। তবে ভারত, বাংলাদেশসহ কিছু দেশে আগস্টের প্রথম রোববার বন্ধুত্ব দিবস উদযাপন করে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়