Cvoice24.com

পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে চিকিৎসক-নার্সদের

সিভয়েস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২৬, ১৯ এপ্রিল ২০২১
পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে চিকিৎসক-নার্সদের

ম্যাজিস্ট্রেট-পুলিশের সঙ্গে চিকিৎসকের বাহাস

চলমান সর্বাত্মক লকডাউন পরিস্থিতিতে জরুরি স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের আবশ্যিকভাবে পরিচয়পত্র ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

লকডাউন শুরুর দিন ১৪ এপ্রিল এ বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হলেও আজ সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে সেটি আবার স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয় অধিদপ্তর থেকে।

লকডাউন চলাকালে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে গণমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

সম্প্রতি এক চিকিৎসকের সঙ্গে পুলিশ কর্মকর্তাদের বাগবিতণ্ডার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে চিকিৎসক, নার্সসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের পরিচয়পত্র ব্যবহারের নির্দেশনা এলো।

রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডে গতকাল রোববার দুপুরে এক নারী চিকিৎসকের গাড়ি থামিয়ে পরিচয়পত্র দেখতে চান পুলিশ সদস্যরা। এতে উত্তেজিত হয়ে ওঠেন তিনি। নিজেকে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান দাবি করে পুলিশ সদস্য ও ম্যাজিস্ট্রেটকে তুই-তোকারি করতে থাকেন। একপর্যায়ে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সদস্যদের ক্ষমা চাইতে বলেন। ক্ষমা না চাইলে ১০০ ডাক্তার নিয়ে আন্দোলন করানোর হুমকি দেন।

৫ মিনিট ২৬ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশ সদস্যদের গালিগালাজ করতে থাকেন ওই নারী। হুমকি দেন চাকরি কেড়ে নেওয়ারও। পুলিশকে উদ্দেশ করে ওই চিকিৎসক বলেন, ‘করোনায় জীবন গেছে কয়জন ডাক্তারের, আর আপনারা কতজন মরছেন? আমার কাছে আবার চান মুভমেন্ট পাস।’ 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিএরপর পুলিশের এক সদস্য ওই নারীকে বলেন, ‘আপনি আমাদের ধমক দিচ্ছেন কেন?’ জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলীর মেয়ে।’ ওই পুলিশ সদস্যও তখন বলেন, ‘আমিও মুক্তিযোদ্ধার ছেলে। আপনি আমাকে শোনাচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধার কথা?’

এ সময় নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে ওই নারী পুলিশকে বলেন, ‘ডাক্তার হয়রানি বন্ধ করতে হবে। আমি বিএসএমএমইউ প্রফেসর, বীরবিক্রমের মেয়ে। আমাকে আপনারা হয়রানি করতে পারেন না।’ 

পরে পুলিশের আরেক সদস্য বলেন, ‘আপা আপনাকে তো হয়রানি করা হচ্ছে না। আপনার কাছে পরিচয়পত্র চাওয়া হচ্ছে।’

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়