Cvoice24.com
corona-awareness

আফগানিস্তানে বিমান হামলায় ২৬২ তালেবান নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:৫২, ২৫ জুলাই ২০২১
আফগানিস্তানে বিমান হামলায় ২৬২ তালেবান নিহত

গত ২৪ ঘণ্টায় আফগান বিমান বাহিনীর হামলায় ২৬২ জন তালেবান সদস্য নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও ১৭৬ জন। রবিবার এক টুইট বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের লাঘমান, নানগারহার, নূরিস্তান, কুনার, গজনি, পাখতিয়া, কান্দাহার, হেরাত, বালখ, জওজান, হেলমান্দ, কুন্দুজ ও কাপিসা প্রদেশে বিমান হামলা চালিয়েছে আফগানিস্তান ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যান্ড সিকিউরিটি ফোর্স (এএনডিএসএফ)। এতে হতাহতের তালেবানের ২৬২ সদস্য নিহত ও আরও ১৭৬ জন আহত হয়েছেন।

২০০১ সালে ১১ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে বিমান হামলা করেছিল মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আল কায়দা নেটওয়ার্ক। সে সময় এই গোষ্ঠীর সদর দফতর ছিল তালেবান শাসিত আফগানিস্তানে।

টুইন টাওয়ারে হামলার জেরে ওই বছর আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করে মার্কিন ও পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটো। অভিযানে পতন হয় তালেবান সরকারের।

অভিযানের প্রায় ২০ বছর পর চলতি বছর এপ্রিলে আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন ও ন্যাটো সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ঘোষণায় তিনি বলেছিলেন, ২০২১ সালের ১১ ডিসেম্বরের মধ্যে সব মার্কিন ও ন্যাটো সেনাসদস্যকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। পরে এই সময়সীমাকে আরও এগিয়ে ৩১ আগস্ট করা হয়।

বাইডেনের এই ঘোষণার পর থেকেই নতুন উদ্যমে আফগানিস্তান পুনরায় নিজেদের দখলে নিয়ে আসার অভিযান শুরু করে কট্টরপন্থি ইসলামি গোষ্ঠী তালেবান। বুধবার এক বিবৃতিতে পেন্টাগন জানিয়েছে, তাদের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী, আফগানিস্তানের ৪১৯টি জেলার অর্ধেকেরও বেশির দখল নিয়েছে তালেবান।

অত্যন্ত দ্রুতগতিতে ও পরিকল্পিতভাবে তালেবান গোষ্ঠীর সাম্প্রতিক এই অভিযানের প্রাথমিক পর্যায়ে দিশেহারা হয়ে পিছু হটছিলেন আফগানিস্তানের সামরিক বাহিনীর সদস্যরা। তবে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদস্যদের সহযোগিতা শুরুর পর থেকে আফগান সামরিক বাহিনীও তালেবানগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা শুরু করেছে।

গত বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর সদর দফতর পেন্টাগনের প্রেস সেক্রেটারি জন কিরবি এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, তালেবানদের অগ্রযাত্রা প্রতিহত করতে আফগানিস্তান সেনাবাহিনীকে সহযোগিতা করছে মার্কিন সেনা সদস্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে জন কিরবি বলেছিলেন, ‘আফগান সেনাবাহিনী, এএনডিএসএফকে সহযোগিতা করতে তালেবান ঘাঁটিসমূহ লক্ষ্য করে বিমান হামলা পরিচালনা করছে মার্কিন সেনা সদস্যরা।’

তার আগের দিন বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফ মার্ক মিলি বুধবার বার্তাসংস্থা এএফপিকে জানিয়েছিলেন, আফগানিস্তানের ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে ১৭টিতে সশস্ত্র তালেবান বিদ্রোহীদের চাপ বাড়ছে; এবং দ্রুত কোনো ব্যবস্থা না নেওয়া হলে পুরো আফগানিস্তান তারা দখল করে নেবে।

মার্ক মিলি বলেন, ‘যে পর্ব আমরা শেষ করে এসেছি, সম্ভবত তার একটি নতুন অধ্যায় ফের আমাদের শুরু করতে হতে পারে।’

শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও দেশটির সামরিক বাহিনীর সদর দফতর পেন্টাগনের প্রধান নির্বাহী লয়েড অস্টিন জানিয়েছেন, তালেবানগোষ্ঠীকে প্রতিহত করতে আফগান সেনাবাহিনীর প্রথম পদক্ষেপ হওয়া উচিত তাদের গতি ধীর করে দেওয়া।

অবশ্য ইতোমধ্যে আফগানিস্তানের ৩৪ প্রদেশের মধ্যে ৩১টিতে রাত্রিকালীন কারফিউ ঘোষণা করেছে আফগানিস্তানের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

শনিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আফগানিস্তানে তালেবান সদস্যদের বিধ্বংসী কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে কাবুল, পানশির ও নানগারহার- এই তিন প্রদেশ ব্যতীত বাকি ৩১টিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য রাত্রিকালীন কারফিউ জারি থাকবে।’

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমেদ জিয়া সাংবাদিকদের বলেছেন, স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত বলবৎ থাকবে কারফিউ।  

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়