Cvoice24.com

চট্টগ্রামের বই মেলার ফেস্টুনে ভুলে ভরা কবিতা, পাল্টে গেল ‘কবি’র নাম

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৩:১৪, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২
চট্টগ্রামের বই মেলার ফেস্টুনে ভুলে ভরা কবিতা, পাল্টে গেল ‘কবি’র নাম

রাত পোহালেই পর্দা উঠবে চট্টগ্রামের একুশে বইমেলার। আগামীকাল রোববার (২০ ফেব্রুয়ারি) থেকে ১৯ দিনব্যাপী এ মেলা চলবে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম মাঠে। বইমেলার আয়োজক চট্টগ্রাম সিটি করপোরেরেশন (চসিক)। কোভিড পরিস্থিতির কারণে গত বছর বইমেলা না হওয়ায়, চলতি মাসের শুরু থেকে ব্যাপক প্রচার প্রচারণায় নেমেছিল চসিক। গতকাল শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) আয়োজনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে মেলা প্রাঙ্গণে সংবাদ সম্মেলনও করে কর্তৃপক্ষ। অথচ বইমেলার প্রচারণার পোস্টারে রুপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশ ও তাঁর রচিত ‘আবার আসিব ফিরে’ কবিতার ভুল বানান ছাপিয়েছে খোদ বইমেলার আয়োজক কমিটি।

দিনভর ভুলে ভরা ‘স্ট্যান্ড ফেস্টুন’ মেলায় থাকলেও কর্তৃপক্ষের চোখে পড়েনি। যদিও শেষ সময়ে এসে ‘ছাপার সময়’ এমন ভুল হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটি ও বইমেলা কমিটির আহ্বায়ক ও কাউন্সিলর নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু। এমনকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও কবি ও কবিতার ভুলের বিষয়টি ব্যাপক সমালোচিত হয়েছে।
 
চসিকের আয়োজিত বইমেলার ‘স্ট্যান্ড ফেস্টুনে’ কবি জীবনানন্দ দাশের নামের বানান লেখা হয়েছে ‘জীবনানন্দ দাস’। সেইসঙ্গে কবির রচিত ‘রুপসী বাংলা’ কাব্যগ্রন্থের ‘আবার আসিব ফিরে’ কবিতাটির প্রথম চার চরণ (লাইন) নিয়ে  ফেস্টুন ছাপালেও প্রথম চরণেই ভুল করে খোদ আয়োজক কমিটি। এমন ভুলকে নিছক ভুল না বলে কবির প্রতি অসম্মান ও কবিতার বিকৃতি বলে মনে করছেন লেখকরা। কবি জীবনানন্দ দাশ তাঁর ‘আবার আসিব ফিরে’ কবিতায় লিখেছেন—

‘আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে– এই বাংলায়
হয়তো মানুষ নয়– হয়তো বা শঙখচিল শালিকের বেশে,
হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই কার্তিঁকের নবান্নের দেশে
কুয়াশার বুকে ভেসে একদিন আসিব কাঁঠাল ছায়ায়।’

অথচ চসিকের ‘ফেস্টুনে’ কবির নামের বানান ভুলের পাশাপাশি কবিতায় শব্দের বিন্যাসে অসংগতি ছিল। যেমন কবিতার প্রথম চরণে ‘ধানসিঁড়িটির তীরে’ থাকলেও ফেস্টুনে ‘নদীটির’ শব্দ অতিরিক্ত যুক্ত করে লেখা ছিল ‘ধানসিঁড়ি নদীটির তীরে’। এমনকি কবি যেভাবে কবিতার চরণ যে ছন্দে লিখেছেন তাও ঠিক রাখা হয়নি। এ নিয়ে বইপ্রেমী পাঠকেরা ক্ষোভ জানিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এ নিয়ে কলেজ শিক্ষক মনসুর নবী ফেসবুকে বলেন, ‘‘মেলার আয়োজনকারীরা বড়ই সৃজনশীল, এতই সৃজনশীল যে ‘জীবনানন্দ দাশ’র নামের বানান ও কবিতার লাইনও পরিবর্তন করে ফেলেছে। ওরা নাকি সৃজনশীল প্রকাশক।’

ফেস্টুনে ভুলের বিষয়ে জানতে চাইলে মেলা কমিটির আহ্বায়ক ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির আহ্বায়ক ও কাউন্সিলর নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু সিভয়েসকে বলেন, ‘না. এটা তো জানি না। আমাদের চোখে পড়েনি। ধন্যবাদ আপনাকে বিষয়টি জানানোর জন্য। আমি তো মেলায় আছি; এখনই সরিয়ে নিচ্ছি।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘যারা মেলার ইভেন্টের দায়িত্বে ছিল তাদের ‘ছাপার ভুল’ হতে পারে। তবে আমি এখনই এর ব্যবস্থা নিচ্ছি।’’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন লেখক বলেন, ‘বইমেলায় এ দায়িত্ব যারা নিয়েছিল তাদের আরও সচেতন হওয়ার দরকার ছিল। তারা যে বানানটি ভুল করেছে তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যাবে না। এ দায় চসিককে অবশ্যই নিতে হবে।‘

-সিভয়েস/এসআর

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়