Cvoice24.com

খুলশীতে হাত-পা বাঁধা ভবন মালিকের লাশ উদ্ধার

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:১৭, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
খুলশীতে হাত-পা বাঁধা ভবন মালিকের লাশ উদ্ধার

নগরের খুলশীতে নির্মাণাধীন সাততলা ভবনের মালিকের হাত পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের দাবি, চাঁদা না দেওয়ায় নেজাম পাশা নামের ৬০ উর্ধ্ব এই ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার মোটিভ নিশ্চিত না হলেও পুলিশও বলছে এটা হত্যাকাণ্ড। 

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) ভোরে খুলশী থানার জালালাবাদ এলাকার একটি নির্মাণাধীন বিল্ডিংয়ের নিচ থেকে এ মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় তার হাত পা বাঁধা অবস্থায় ছিল। 

খুনের শিকার নেজাম পাশা ফটিকছড়ি উপজেলার ধুরং ইউনিয়নের হাদী বাপের বাড়ির মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে। তিনি খুলশী জালালাবাদ এলাকায় সাত তলা ভবন নির্মাণ করছিলেন। 

আমাদের ফটিকছড়ি প্রতিনিধি জানান, নেজাম পাশার বড় ছেলে প্রবাসী ফয়সাল মুহাম্মদের দাবি, প্রতিদিন তার বাবা নির্মাণাধীন সাত তলা ভবনের কাজ তদারকি করতে ফটিকছড়ি থেকে খুলশীতে যেতেন। সার্বক্ষণিক দেখভালের জন্য হাসান নামের একজন কেয়ারটেকারও রেখেছেন। প্রতিদিনের মত রোববার সকালেও তার বাবা সেখানে যান। সকাল দশটা থেকে তার ফোনে কল করেও পাওয়া যাচ্ছিল না। এক পর্যায়ে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। কেয়ারটেকারকে ফোন করা হলে তিনিও উল্টাপাল্টা বলতে থাকেন।

সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও কোন খোঁজ না পাওয়াতে নগরেতে বসবাসরত নিহতের বড় মেয়ে নাজমুন শবনম খুলশী থানায় একটি জিডি করেন। এরমধ্যে রাত দশটার দিকে তার ফোন চালু করে দরোয়ান পরিচয়ে কেউ একজন কথা বলেন। ভবনের মালামাল এসেছে, টাকা লাগবে বলে জানিয়ে ফোন করে। পরক্ষণে আবারো ফোনটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

গ্রাম থেকে তার পরিবারের সদস্যরা রাতে গিয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করলেও কোন হদিস পাননি। অবশেষে সোমবার ভোরে মসজিদের মুসল্লিরা নির্মাণাধীন ভবনের প্রায় চল্লিশ গজ দূরে প্লাস্টিকে ঢাকা হাত বাঁধা লাশটি পড়ে থাকতে দেখেন। খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা সেখানে আসেন। পরে পুলিশ এসে লাশের সুরতহাল তৈরি করে মর্গে প্রেরণ করে।

নিহতের ছেলে ফয়সাল বলেন, ভবনের সাত তলার ঢালাই কাজ শেষ। শুরু থেকে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা চাঁদা দাবি করে আসছিল। তবে বাবা কোনভাবে এক টাকাও দিতে রাজি ছিলেন না। স্থানীয় চাঁদাবাজরা চাঁদা না পাওয়াতে খুন করতে পারে। এছাড়া কেয়ারটেকার হাসানও তাকে হত্যা করতে পারে। কেননা ভবনের জন্য নিয়ে আসা বিভিন্ন সরঞ্জাম বিক্রি করে ফেলায় তা নিয়ে বাবা কেয়ারটেকারকে বকা দিত। এছাড়া ঘটনার পর থেকে দরোয়ান হাসান পলাতক। 

খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীনুজ্জামান বলেন, ভোরে হাত পা বাঁধা অবস্থায় নেজাম পাশা নামে একজন ভবন মালিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহর গায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে নিশ্চিত হয়েছি। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়