Cvoice24.com

ছয় বছরের ভালোবাসার সংসার ৬ মাসেই ধুলিসাৎ

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮:৩৭, ২৬ অক্টোবর ২০২১
ছয় বছরের ভালোবাসার সংসার ৬ মাসেই ধুলিসাৎ

দীর্ঘ ৬ বছরের ভালোবাসায় ঘর বেধেছিলো বাঁশখালীর সন্তান সঞ্জীবন দাশের সঙ্গে চাঁদুপুরের দুলাল দাশের মেয়ে অঞ্জলি দাশ। তবে ভাগ্যের নির্মম পরিহাস বিয়ের ৬ মাসের মাথায় প্রাণ গেলো অঞ্জলীর। যৌতুক না পেয়ে শ্বশুর বাড়িতে নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে দাবি করছেন নিহতের পরিবার।

সোমবার দিবাগত রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। দীর্ঘ দুই মাস ১০ দিন চমেক হাসপাতালের ২৮ নম্বর আইসিইউতে চিকিৎসাধীন থেকে মারা যান গুরুতর আহত অঞ্জলী।

এ বিষয়ে নিহতের ভাই সুজিত দাশ সিভয়েসকে জানান, বাশঁখালীর সাধনপুর গ্রামের উৎপল দাশের ছেলে সঞ্জীবন দাশের সঙ্গে চলতি বছরের মার্চে তার বোন অঞ্জলির পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে কারণে-অকারণে তার বোনকে মারধর করে স্বামী সঞ্জীবন দাশ। সে তার কাছে প্রায়ই যৌতুকের টাকা চায়। গত ১৮ আগস্ট বাবার বাসা থেকে ফিরিঙ্গবাজার শ্বশুর বাড়ি যায় অঞ্জলি। ওই দিন রাতেই সঞ্জীবনের পরিবার জানায় অঞ্জলি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

সুজিত দাশ আরও বলেন, ‘পরবর্তীতে তাকে বেসরকারী একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানালেও বোনের শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমাদেরকে তার সঙ্গে দেখা করতে দেয়নি। পরে পুলিশের সহায়তা নিয়ে আইসিউতে বোনকে দেখার সুযোগ পাই। পরবর্তীতে আমরা অঞ্জলিকে ওই হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে নিয়ে যাই। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার দিবাগত রাতে তার (অঞ্জলি) মৃত্যু হয়।’ তবে অঞ্জলির স্বাভাবিক মৃত্যু নয়; এটা সম্পূর্ণ একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে দাবি সুজিত দাশের।

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন সিভয়েসকে বলেন, ‘ফিরিঙ্গবাজারের এক গৃহবধূর মৃত্যুর সংবাদ পেয়েছি। আমাদের ফোর্স ঘটনাস্থলে তদন্তে বেরিয়েছে। বিস্তারিত রিপোর্ট পেলে জানা যাবে। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি।’

-সিভয়েস/আইএইচ

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়