Cvoice24.com

শীত থাকবে মাসজুড়ে

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮:২৮, ১৭ জানুয়ারি ২০২২
শীত থাকবে মাসজুড়ে

পৌষের শেষে, মাঘের শুরুতে সূর্য্যি মামার দেখা মিলছে না তেমন। কিন্তু হালকা হিম শীতল হাওয়া আর কুয়াশা নাড়িয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রামবাসীকে। যদিও এবার সময়ের আগেই দেখা দিয়েছিল শীত। তবে এবারের শীত তেমন একটা কাবু করতে পারেনি নগরবাসীকে। তাতে কি! শীত কিন্তু পিছু ছাড়ছে না। পঞ্জিকা অনুসারে পৌষ ও মাঘেই শীত পড়ার কথা। অথচ এ অঞ্চলের শীতের আবহাওয়া সে কথা আর রাখেনি। আর এতেই শীতে নাজেহাল হয়ে পড়া সাধারণ মানুষের জীবনযাপনে কিছুটা স্বস্তি মিলিছে। 

তবে শীতের তীব্রতা না থাকলেও শীতকালীন অবস্থা বজায় থাকবে এ মাসের বাকি সময়টাতে। কিন্তু দেশের অন্যান্য অঞ্চলে শীতের তীব্রতা বাড়ছে। কোথাও কোথাও বইছে শৈত্যপ্রবাহ। তবে চট্টগ্রামে শীতের বিদায়ের আগে শৈত্যপ্রবাহের দেখা মিলবে না। এমন পরিস্থিতিতে মাসের শেষদিকে দুই একদিন গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। তবে ক্যালেন্ডারের পাতায় চড়ে জানুয়ারি মাসের পুরোটাই শীতকাল। তাই এই মাসে শৈত্যপ্রবাহ থাকুক আর নাই থাকুক শীত থাকবে। 

সোমবার (১৭ জানুয়ারি) চট্টগ্রামের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের চেয়ে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৫ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের চেয়ে ৮ ডিগ্রি কম। দিনের তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তি খাকলেও রাতের তাপমাত্রা খানিক কমবে।

এদিকে তাপমাত্রা ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে তা মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, ৬ থেকে ৮ ডিগ্রির মধ্যে থাকলে মাঝারি এবং এর নিচে নামলে তা তীব্র শৈত্যপ্রবাহ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। তবে আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে, জানুয়ারির শেষ দিকে বাতাসে জলীয় বাস্প ও আকাশে মেঘ বেড়ে যেতে পারে। ফলে দেশের বিভিন্ন স্থানে কুয়াশা ও হালকা বৃষ্টি হতে পারে, তাপমাত্রাও কিছুটা বাড়তে পারে। এরপর তাপমাত্রা আবারও কমতে থাকবে। তবে বিভাগীয় শহরগুলোতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নামার সম্ভাবনা নেই বলেও জানানো হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ সেখ ফরিদ আহমেদ সিভয়েসকে বলেন, আকাশ অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলাসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। সে সাথে মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত নদী অববাহিকায় হালকা থেকে মাঝারি মাত্রার কুয়াশা্ পড়তে পারে।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘চলতি বছর এখনও চট্টগ্রামে শৈত্যপ্রবাহ হয়নি। সেইসঙ্গে এবার শৈত্যপ্রবাহ হওয়ার সম্ভাবনাও নাই। যদিও এমনটা প্রতি বছর হয় না। তাছাড়া এ মাসের বাকি সময়টাতে তীব্র শীত না থাকলেও শীতের অনুভূতি থাকবে। এরপরেই শীত বিদায় নিতে পারে। মাসের শেষদিকে দুই একদিন হালকা গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।’

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়