Cvoice24.com

বউয়ের কথায় মাকে খুন, ২৫ বছর পর ছেলের যাবজ্জীবন দণ্ড 

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮:১৯, ১৮ আগস্ট ২০২২
বউয়ের কথায় মাকে খুন, ২৫ বছর পর ছেলের যাবজ্জীবন দণ্ড 

প্রতীকী

বউয়ের কথায় সৎ মাকে কুপিয়ে হত্যা করেছিলেন ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের মো. বেলাল হোসেন। দীর্ঘ ২৫ বছর পর সেই হত্যা মামলায় আসামিকে যাবজ্জীবন সাজা দিলেন আদালত। পাশাপাশি তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়।

বুধবার (১৭ আগস্ট) চট্টগ্রামের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আবু হান্নানের আদালত এই রায় দেন। আসামি মো.বেলাল হোসেন ফটিকছড়ি উপজেলায় ভুঁজপুর হেয়াঁকো বাংলা পাড়ার আমিনুর রহমানের ছেলে।

বিষয়টি সিভয়েসকে নিশ্চিত করেছেন সরকারি কৌশুলি বিশ্বজিৎ দাশ।

এই মামলাটা অনেকদিন ধরে পড়ে ছিল। অনেকদিন ধরে সাক্ষী হয় না। ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যের উপর এই রায় দেয়া হয়েছে। এই সাক্ষীগুলো অনেক আগে নেয়া হয়েছে।'

এত লম্বা সময় পর রায়ের কারণ জানতে চাইলে বিশ্বজিৎ দাশ বলেন, ‘মামলাটি দীর্ঘদিন ধরে পড়ে ছিল। অনেক আগেই ১৩ জনের সাক্ষী নেওয়া হয়েছিল। সেই সাক্ষ্যের উপর ভিত্তি করে আজ এই রায় দেয়া হয়েছে।’

মামলার আরেক সরকারি কৌশুলি রনজিত দাশ বলেন, ‘এই কোর্টে নিয়মিত বিচারক থাকেন না। এর আগে আড়াই বছর কোনো বিচারক ছিলেন না। এই দফায় আমরা শুধুই যুক্তিতর্ক করেছি। সাক্ষী সব আগেই নেয়া।’

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ‘সৎ মাকে হত্যার পর থেকে আর এলাকায় যাননি বেলাল। এর মধ্যে যে স্ত্রীর জন্য মাকে হত্যা করেন সেই স্ত্রীও আরেকজনের সাথে সংসার পাতেন। বেলালও আরেক নারীকে বিয়ে করেছেন বলে শুনলেও নিশ্চিতভাবে কেউই এই বিষয়ে বলতে পারছেনা।’

আদালত সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৭ সালে ৭ অক্টোবর  সকাল সাড়ে ১০ টায় ফটিকছড়ি উপজেলার দাঁতমারা ইউনিয়নের হেয়াঁকো বাংলা পাড়া বেলাল হোসেন তার সৎ মা রহিমা খাতুনকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। রক্তাক্ত অবস্থায় রহিমা খাতুনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। একই দিন বিকেলে তিনটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রহিমা খাতুনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় দিনিই ফটিকছড়ি থানায় বেলাল হোসেনের বিরুদ্ধে তার পিতা আমিনুর রহমান মামলা দায়ের করেন। এর তিন বছর পর ২০০০ সালের ১০ জানুযারি আদালতে অভিযোগ গঠন করে আদালতে ১৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। এরপরও দীর্ঘদিন আদালতে মামলাটি পরে থাকে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়