Cvoice24.com

‘আইন অনেক সময় এক্সাম্পল হিসেবে প্রয়োগ হয়ে থাকে, যাতে অন্যরা সচেতন হয়’

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:০৫, ২৬ নভেম্বর ২০২২
‘আইন অনেক সময় এক্সাম্পল হিসেবে প্রয়োগ হয়ে থাকে, যাতে অন্যরা সচেতন হয়’

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক উত্তর বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. মমতাজ উদ্দিনের অবসরজনিত বিদায় সংবর্ধনায়।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক উত্তর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার জয়নুল আবেদীন বলেছেন, আমরা গণহারে সকল পরিবহন বা ব্যক্তির উপর আইন প্রয়োগ করতে পারি না। আইন ভঙ্গকারী দু’একজনের উপর আইন প্রয়োগ করে বাকিদের সচেতন হতে সুযোগ প্রদান করি।

অনেক চালক-মালিক বলে থাকেন— ‘আমাকে মামলা দিলেন, অমুককে দিলেন না কেন?’ এমন অনেক কথা আমাদের সহকর্মীদের শুনতে হয়। কিন্তু আমরা উদাহরণস্বরূপ আইনের আওতায় আনি এবং বাকিদের সুযোগ প্রদান করি। যাতে তারা শুধরে নিতে পারেন। আইন মান্যকারী প্রায় সকলেই আমাদের (পুলিশ) পছন্দ করে, কারণ আমরা মাঠ পর্যায়ে মানুষের সরাসরি সেবা করতে পারি। কতিপয় মানুষ অপছন্দ করে তারা আমাদের মাধ্যমে কোন না কোন সময় আইনের আওতায় এসেছিল। আর আমাদের একটা কমন চিন্তাধারা হলো, আইন ততোক্ষণই ভালো যতক্ষণ সেটা আমার উপর প্রয়োগ হবে না।

শনিবার (২৬ নভেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক উত্তর বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. মমতাজ উদ্দিনের অবসরজনিত বিদায় সংবর্ধনায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

জয়নুল আবেদীন আরও বলেন, আজকে যারা সার্জেন্ট, ট্রাফিক পরিদর্শক (টিআই) কর্মরত রয়েছেন, তাদের একদিন এভাবেই বিদায় নিতে হবে। এটাকে মনে করতে হবে একটা জার্নি। সবপথ অতিক্রম করে একটা স্টেশনে গিয়ে থামতে হবে। চাকরি থেকে হোক বা জীবন থেকে হোক। কাজেই এটাকে আমাদের জীবনের সাথে মানিয়ে নিতে হবে। আমাদের সকল সহকর্মীদের প্রতি অনুরোধ থাকবে, যে কোন পুলিশ কর্মকর্তা বা সহকর্মীর বিপদে আপদে পাশে থাকতে হবে। মনে রাখতে হবে, আপনিও একই পথের পথিক হবেন। মমতাজ উদ্দিন দীর্ঘ ৩৭ বছর ট্রাফিক বিভাগকে সেবা দিয়েছেন। এ অবদান ট্রাফিক বিভাগকে সমৃদ্ধ করেছে।

মুরদাপুরের ট্রাফিক পরিদর্শক ইস্রাফিল মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ট্রাফিক উত্তর বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার কাজী মোহাম্মদ হুমায়ুন রশীদ। অনুষ্ঠানে সদ্য অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মো. মমতাজ উদ্দিনকে ক্রেস্ট ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

এই বিচক্ষণ কর্মকর্তার বিদায় উপলক্ষে উপস্থিত শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ সিএমপিতে অবস্থানকালীন কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ করেন। উপ-পুলিশ কমিশনার তার অতীতের বর্ণাঢ্য কর্মজীবনের প্রশংসা এবং অবসরোত্তর জীবনের সুস্থতা কামনা করেন।

বিদায়ী কর্মকর্তা মো. মমতাজ উদ্দিন বলেন, পুলিশে যোগদানের সময় যে অবস্থা ছিল তা এখন আর নেই। পুলিশে অনেক পরিবর্তন এসেছে। আজকের এ বিদায় আমাকে সম্মানিত করেছে। আজীবন পুলিশ সহকর্মীর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবো। হয়তো ভালভাবে সেবা করতে পেরেছি বলেই আজ এ সম্মানটুকু পাচ্ছি। আপনারাও নিজেদের সম্মান করবেন পুলিশকে সম্মানিত করবেন। তাহলেই আমি আপনি সকলে সম্মানিত হব।

অনুষ্ঠান শেষে ডিসি ট্রাফিক (উত্তর) জয়নুল আবেদীন তার নিজের সরকারি গাড়িতে অবসরপ্রাপ্ত এসিকে কর্মস্থল থেকে বাসায় পৌঁছে দিয়ে ব্যতিক্রমী নজির স্থাপন করেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ট্রাফিক উত্তর বিভাগের পুলিশ পরিদর্শক (টিআই) প্রশাসন মো. জহুরুল ইসলাম সরকার, পাঁচলাইশের ট্রাফিক পরিদর্শক তারিকুল ইসলাম, প্রবর্তকের ট্রাফিক পরিদর্শক বিপুল পাল, মোহরার ট্রাফিক পরির্দশক মো. মোশাররফ হোসেন, বায়েজিদের ট্রাফিক পরিদর্শক মো. আলমগীর হোসেনসহ ট্রাফিক উত্তর বিভাগে কর্মরত সার্জেন্ট এবং কনস্টেবলবৃন্দ।

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়