Cvoice24.com

চট্টগ্রামে পুলিশি পাহারায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:০৯, ৮ ডিসেম্বর ২০২২
চট্টগ্রামে পুলিশি পাহারায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

চট্টগ্রামে পুলিশি পাহারায় বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার বিকেলে নগরের কাজীর দেউড়ির নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে এ সমাবেশ করে। ঢাকার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের হামলা, হত্যা, গ্রেপ্তার ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে এ সমাবেশ করে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি।

সমাবেশ ঘিরে যে কোন সংঘাত এবং অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সর্তক অবস্থানে ছিল পুলিশ। বিএনপি কার্যালয়ের প্রবেশপথে বিপুল সংখ্যক পুলিশের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়াও নগরের মোড়ে মোড়ে পুলিশের উপস্থিতিও ছিলো চোখে পড়ার মতো।

এর আগে, গতকাল বুধবার রাতে ঢাকায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের হামলা, হত্যা, গ্রেপ্তার ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে নগরের আলমাস সিনেমা হলের সামনে মশাল মিছিল বের করে দলের নেতাকর্মীরা। এসময় তাদের বিরুদ্ধে গাড়ি ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগের অভিযোগ ওঠে। পরে এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে গাড়ি ভাঙচুরের শিকার ওই গাড়ির এক মালিক বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পরে ওই মামলার প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

এদিকে বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর সাংবাদিকদের বলেন, ‘মাফিয়া সরকার যেভাবে হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে, যেভাবে আক্রমণ করেছে। এই যে মকবুল হোসেনকে হত্যা করেছে, ছাত্রদলের...সাংগঠনিক সম্পাদক মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। আমাদের শত শত নেতাকর্মী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অনেক সিনিয়র নেতাসহ প্রায় তিনশ এর মতো নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার এবং আহত করেছে। এ নেক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে আমাদের এ বিক্ষোভ সমাবেশ।

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের ১০ তারিখের যে কর্মসূচি তা বানচাল করার জন্য পরিকল্পিতভাবে সরকার এ হামলা চালিয়েছে। যাতে মানুষ ভীতি সৃষ্টি করে যাতে ঢাকায় মানুষ না যায়। সমাবেশে যারা ঢাকার ভেতরে আছে; তারা যাতে সমাবেশে না আসে এবং এ সমাবেশকে বানচাল করার জন্যই পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে। এগুলো করে কোনো লাভ হবে না।’ ঢাকা পল্টন অফিস ঘেরাও, সারা ঢাকা বিএনপির দখলে যাবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন বিএনপির এ নেতা।

ঢাকায় আয়োজিত ১০ তারিখের সমাবেশে চট্টগ্রাম কত মানুষ যাবে—  এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এখনও ১০ তারিখের সমাবেশকে ঘিরে অনেক নেতাকর্মী ঢাকায় অবস্থান করছে। আজ-কালের মধ্যে আরও হাজার হাজার নেতাকর্মী ঢাকায় যাবে। আমাদের না যাওয়ার ইচ্ছে ছিল। এখন এ হামলার পরে বিএনপি নেতাকর্মীরা আরও উজ্জীবীত হয়ে এবং আরও স্পিড নিয়ে ঢাকার সমাবেশকে সফল করবে। একইসঙ্গে স্বৈরাচারের পতন হবেই হবে।’

এদিকে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির কেন্দ্র ঘোষিত বিক্ষোভ সমাবেশে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘ভোট চুরি, মানুষ খুন, সন্ত্রাস, মামলা হামলা, ব্যাংক লুটই আওয়ামী লীগের বড় গুন। গতকাল ঢাকার পল্টনে বিএনপির ওপর হামলা ও কর্মীদের খুন করার পর তা আবারও প্রমাণিত হয়েছে। পার্টি অফিসের সামনে নেতাকর্মীরা থাকবে, সেটি তো স্বাভাবিক। কিন্তু পার্টি অফিসের সামনে যেভাবে সন্ত্রাসীরা হামলা করলো তা নজিরবিহীন। আমাদের শত শত নেতাকর্মী আহত হয়েছেন, গ্রেপ্তার হয়েছেন। একজন নিহতও হয়েছেন।’

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়