Cvoice24.com

ভূমি-গৃহহীনমুক্ত হচ্ছে চট্টগ্রাম

সিভয়েস২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৯:৫৩, ১০ জুন ২০২৪
ভূমি-গৃহহীনমুক্ত হচ্ছে চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামের আরো আড়াইশো ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর হস্তান্তর করা হচ্ছে। মঙ্গলবার (১১ জুন) প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে দ্বিতীয় ধাপে পঞ্চম পর্যায়ে নির্মিত এসব পরিবারের মাঝে তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে দলিল হস্তান্তর করবেন। এরপর থেকে চট্টগ্রামের ১৫ উপজেলা ভূমি-গৃহহীনমুক্ত। 

জানা গেছে, ৫ম পর্যায়ের (২য় ধাপ) চট্টগ্রামে ২৩৪টি ঘরের মধ্যে চন্দনাইশে ১৫৫টি, মিরসরাইয়ে ৩৪টি, সীতাকুণ্ডে ৪৫টি পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর করা হবে। মিরসরাই উপজেলার জন্য নতুনভাবে ৭৩টি ঘরের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যার নির্মাণকাজ শেষের দিকে। এছাড়া, জরাজীর্ণ ব্যারাকের স্থলে একক গৃহ নির্মাণের জন্য ১১৬টি ঘরের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। ২০২৩ সালের ১৪ নভেম্বর ১০০ পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রম উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী ১১ জুন বাকি ১৬টি পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর করা হবে।

অন্যদিকে, সন্দ্বীপ উপজেলায় নির্মাণাধীন ৪টি আশ্রয়ণ প্রকল্পের মধ্যে তিনটি প্রকল্প বাংলাদেশ নৌবাহিনীকর্তৃক হস্তান্তর করা হয়েছে। একটি আশ্রয়ণ প্রকল্প হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন। প্রকল্পসমূহে ৯২৩টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে।

জেলা প্রশাসনের তথ্যানুযায়ী, এর আগে চট্টগ্রাম জেলার ১৫ উপজেলার মধ্যে ১২ উপজেলা যথাক্রমে পটিয়া, কর্ণফুলী, আনোয়ারা, বোয়ালখালী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, বাঁশখালী, রাঙ্গুনিয়া, রাউজান, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, মিরসরাই উপজেলাকে ভূমি-গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

বাকি তিন উপজেলা অর্থাৎ চন্দনাইশ, সীতাকুণ্ড ও সন্দ্বীপ উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করার জন্য আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প কার্যালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। আগামীকাল এই তিন উপজেলার পাশাপাশি চট্টগ্রাম জেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ছিন্নমূল মানুষদের পুনর্বাসনের মাধ্যমে অন্তর্ভূক্তিমূলক উন্নয়নে শেখ হাসিনা মডেল তথা আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প বাস্তবায়নে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন বদ্ধপরিকর।

প্রসঙ্গত, ‘মুজিব শতবর্ষে একজন লোকও গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তত্ত্বাবধায়নে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ০২ শতাংশ জমিসহ সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ঘর প্রদানের কার্যক্রম গ্রহণ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম জেলায় ১ম পর্যায়ে ১৪৪৪ পরিবার, ২য় পর্যায়ে ৬৪৯ পরিবার, ৩য় পর্যায়ে ১৯৬২ পরিবার, ৪র্থ পর্যায়ে ১২২৩ পরিবারের কাছে জমি ও ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে এবং উপকারভোগী পরিবারসমূহ ওই ঘর থাকছেন।

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়