Cvoice24.com

যেভাবে গ্রেপ্তার হলেন মামুনুল হক

সিভয়েস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:২৭, ১৮ এপ্রিল ২০২১
যেভাবে গ্রেপ্তার হলেন মামুনুল হক

মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে মামুনুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়েল রিসোর্টকাণ্ড থেকে ছাড়া পেয়ে সরাসরি ঢাকায় চলে আসেন মাওলানা মামুনুল হক। তবে গ্রেপ্তার আতঙ্কে বাসায় ফিরেননি। যান পাশের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায়। সেখানে মাদ্রাসার একটি কক্ষে অবস্থান নেন তিনি।

ওই সময় থেকেই পুলিশ তার ওপর নজর রাখছিল। রবিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশ ও তেজগাঁও বিভাগের শতাধিক পুলিশ ওই মাদ্রাসাটা ঘিরে ফেলে।
 

এই সময় মাদ্রাসার ভেতরে শতাধিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থী ছিলেন। প্রথমে তারা বাধা দেয়ার চেষ্টা করলেও অতিরিক্ত পুলিশের অবস্থান দেখে তারা হাল ছেড়ে দেয়।

মাদ্রাসার দোতলার একটি কক্ষ থেকে মামুনুল হককে নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে তোলা হয়। এরপর প্রথমে তাকে তেজগাঁও ডিভিশনের ডিসির কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাকে মিন্টো রোডে ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মামুনুলকে যখন গাড়িতো তোলা হচ্ছিল তখন দশ পনের জন মাদ্রাসার শিক্ষক তাকে ঘিরে ধরলেও পুলিশ দ্রুত গতিতে গাড়ি চালিয়ে তাকে নিয়ে যায়। এসময় তারা ‘মামুনুল হকের কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে।’  নারায়ে তাকবির-আল্লাহু আকবর’ এরকম স্লোগান দিতে দিতে মাদ্রাসায় ঢুকে যায়। 

সংশ্লিষ্টরা জানান, মামুনুল হকের মাদ্রাসা থেকে বের হওয়ার অপেক্ষা করলেও রবিবার (১৮ এপ্রিল) তাকে মাদ্রাসা থেকেই গ্রেফতার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে মাদ্রাসায় কতজন শিক্ষার্থী অবস্থান করছেন সেই তথ্য সংগ্রহ করেন। পরে প্রযুক্তির সহায়তায় মামুনুল হকের সর্বশেষ অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন। এরপরই পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের পুলিশ কর্মকর্তাসহ গোয়েন্দা পুলিশের মতিঝিল জোনাল টিম তাকে গ্রেফতারে অভিযান চালান।

অভিযানে অংশ নেওয়া গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, মাদ্রাসার গেটে সার্বক্ষণিক পাহারা বসিয়েছিলেন মামুনুল হক। পুলিশের শতাধিক ফোর্স নিয়ে তারা মাদ্রাসায় গেলে প্রথম দিকে মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু অভিযানের মুখে পিছু হটেন তারা। পরে মাদ্রাসার দ্বিতীয় তলায় মামুনুল হকের কক্ষে গিয়ে তাকে পুলিশের সঙ্গে যেতে বলেন। তিনি নিজেও বুঝতে পারেন বাঁধা দিয়ে কোনও লাভ হবে না। তাই স্বেচ্ছায় হেঁটে গাড়িতে ওঠেন তিনি।

 

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়