Cvoice24.com

চট্টগ্রামে মেট্রোরেল/ কোন দিক দিয়ে যাবে, ব্যয় কত— জানতে শুরু হচ্ছে সমীক্ষা

সিভয়েস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭:০৩, ৫ আগস্ট ২০২২
কোন দিক দিয়ে যাবে, ব্যয় কত— জানতে শুরু হচ্ছে সমীক্ষা

প্রতীকি ছবি।

চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের তিনটি রুট কোন দিক দিয়ে যাবে, কত ব্যয় হবে— সবকিছু ঠিক করতে শুরু হচ্ছে সমীক্ষা প্রকল্প। ৫৪ কিলোমিটার রেলপথ তৈরির জন্য দুই বছর মেয়াদী সমীক্ষা প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮১ কোটি ৪৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

সরকারি অর্থায়ন ২৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। বাকি ৫১ কোটি ৬০ লাখ টাকা অনুদান দেবে কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল কপোরেশন এজেন্সি। ২০২২ হতে ৩১ আগস্ট ২০২৪ পর্যন্ত মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে প্রকল্পটি।

ডিটিসিএ জানায়, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই শহরে ৪০ লাখ মানুষ বসবাস করে। শিল্পকারখানা ও ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্রমবর্ধমান প্রসারের মাধ্যমে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের জনসংখ্যা বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও দ্রুত নগরায়ন ঘটছে। ফলে এ শহরের পরিবহন ব্যবস্থার ওপর ক্রমান্বয়ে চাপ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং ট্রাফিক জ্যাম, দুর্ঘটনা, বায়ুদূষণ ইত্যাদি সমস্যা বেড়ে চলেছে।

এ প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম শহর ও আশপাশের পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে কিছু কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ১৯৯৫ সালে ‘চট্টগ্রামের ট্রাফিক ও পরিবহনের জন্য দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়ন কৌশল’ শীর্ষক একটি সমীক্ষা পরিচালনা করে। পরে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এমআরটি লাইন স্থাপনের জন্য একটি প্রাক-সম্ভাব্যতা সমীক্ষা সম্পন্ন করে।

সেই সম্ভাব্যতা অনুযায়ী, সাড়ে ৫৪ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেলের তিনটি রুট (এমআরটি লাইন) নির্ধারণ করে সিটি করপোরেশন। এই তিনটি এমআরটি রুটের মধ্যে এমআরটি লাইন-১ (কালুরঘাট থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত)। এতে স্টেশন থাকবে ২০টি এবং দৈর্ঘ্য সাড়ে ২৬ কিলোমিটার। স্টেশনগুলো হচ্ছে— কালুরঘাট, কাপ্তাই রাস্তার মাথা, চান্দগাঁও সিএনবি বাস স্টপ, হাজেরা-তজু ডিগ্রি কলেজ, বহদ্দারহাট, কাপাসগোলা, চকবাজার, জহুর আহমেদ চৌধুরী রোড, লালখানবাজার, দেওয়ানহাট, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, বারিক বিল্ডিং, নিমতলী, সল্টগোলা ক্রসিং, সিইপিজেড, সিমেন্ট ক্রসিং, স্টিল মিল বাস স্টপ, পতেঙ্গা, পতেঙ্গা বিচ ও এয়ারপোর্ট।

এমআরটি লাইন-২ (সিটি গেট থেকে নিমতলা হয়ে শাহ আমানত সেতুর গোল চত্বর পর্যন্ত)। এতে স্টেশন থাকবে ১২টি এবং দৈর্ঘ্য সাড়ে ১৩ কিলোমিটার। স্টেশনগুলো হচ্ছে— সিটি গেট, কর্নেলহাট গেট, একে খান বাস স্টপ, সরাইপাড়া, নয়াবাজার, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, পোর্ট মার্কেট, নিমতলী, বারিক বিল্ডিং, সদরঘাট, ফিরিঙ্গিবাজার ও শহীদ বশিরউজ্জামান স্কয়ার।

এমআটি লাইন-৩ (অক্সিজেন থেকে ফিরিঙ্গিবাজার ও পাঁচলাইশ থেকে এ কে খান পর্যন্ত)। এতে স্টেশন থাকবে ১৫টি এবং দৈর্ঘ্য সাড়ে ১৪ কিলোমিটার।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) নির্বাহী পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) সাবিহা পারভীন বলেন, চট্টগ্রামে মেট্রোরেল নির্মাণ করা হবে। এই লক্ষ্যে সমীক্ষা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। আগে ঢাকায় ডিটিসিএ কাজ করতো। এখন নতুন আইন হয়েছে, চট্টগ্রামেও কাজ করবে ডিটিসিএ।

সূত্র: জাগো নিউজ
 

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়