Cvoice24.com

খাগড়াছড়িতে নিহত সজীবের পরিবারের খবর নেয়নি কেউ

প্রকাশিত: ১৫:১৪, ৭ মে ২০১৮
খাগড়াছড়িতে নিহত সজীবের পরিবারের খবর নেয়নি কেউ

ছবি: প্রতিনিধি

দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত মাইক্রোবাস চালক সজীব হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে পাহাড়ে পার্বত্য বাঙালি সংগঠনগুলো হরতালের নামে নাটকীয় কর্মসূচি দিলেও নিহত সজীবের পরিবারের খবর নেয়নি কেউ।

হত্যার প্রতিবাদে প্রথম দফায় ৭২ ঘন্টার হরতাল কর্মসূচির ১২ ঘন্টা পর ৬০ ঘন্টার হরতাল প্রত্যাহার করা হয়। আবার কেউ কেউ ঢাকা থেকে তিন পার্বত্য জেলায় ৪৮ ঘন্টার হরতাল কর্মসূচি দিয়ে নাটকীয়ভাবে আবার তা প্রত্যাহাওর করে নেয়। অপরদিকে অন্য একটি গ্রুপ হরতালের পক্ষে পিকেটিং করলে, ভয়ে, আতঙ্কে চরম খোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ।
এই ভাবে প্রতিবাদের নামে বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে দায় এড়াচ্ছে পার্বত্য বাঙালি সংগঠনগুলো।

নিহত সজীবের দাফন কাপন ঠিকভাবে হল কি না। তার সাত বছর বয়সী একমাত্র ছেলে শিহাব হাসানকে নিয়ে স্বামী হারা স্ত্রী মৌসুমি আক্তার কেমন আছেন। এই খবর কেউ না নিলেও, বরিশাল মাঠবাড়িয়া থানার গুইসা গ্রামের পারিবারিক কবরস্থানে, সজীবের দাফন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন খাগড়াছড়ি রেন্ট কার মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম।

অপরদিকে একই দাবিতে ঢাকা থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেইসবুক স্ট্যাটাস’র মাধ্যমে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান আলকাছ মিয়া’র আহ্বানে তিন পার্বত্য জেলায় ৪৮ ঘন্টার হরতাল ঘোষণা দিয়ে আবার সোমবার ৭ মে দুপুরে ফেইসবুকস্ট্যাটাস’র মাধ্যমে আবার তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়। পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের অপর অংশের কেন্দ্রিয় সভাপতি আব্দুল মজিদ, সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ ফরাজী সাকিব স্বাক্ষরিত প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ৬ মে রাতে একই দাবিতে আবারও ৪৮ ঘন্টার হরতাল দিয়ে ৭ মে সকালে থেকে শহরের বিভিন্ন স্থানে পিকেটিং করে গাড়ী ভাংচুর শুরু করে হরতাল সমর্থনকারীরা। এসময় নজরুল ইসলাম মাসুদসহ চার কর্মীকে পুলিশ আটক করার পর, হরতাল কর্মসুচি প্রত্যাহার করে সমঝোতার মাধ্যমে তাদের ছাড়িয়ে আনা হয়েছে বলে জানান, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ-একাংশের সভাপতি আব্দুল মজিদ।

এই বিষয়ে খাগড়াছড়ি সদর থারা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেন টিটু বলেন, প্রশাসরে আশ্বাসে বিভিন্ন সংগঠনের সকল প্রকার কর্মসুচি প্রত্যাহার করা হয়েছে। জেলায় কোন অবরোধ নেই গাড়ী চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে জানিয়ে কেউ আটক নেই বলেও জানান ওসি।

সহকর্মী হত্যার প্রতিবাদে শান্তিপূর্ন কর্মবিরতি কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে, রেন্ট এ কার মালিক ও চালক সমিতি। সজীব হত্যার প্রতিবাদে সোমবার ৭ মে সকাল থেকে খাগড়াছড়ি পৌর টাউন হল চত্ত্বরে সকল প্রকার কার মাইক্রোবাস চলাচল বন্ধ রেখে কর্মবিরতি কর্মসুচি পালন করেছে রেন্ট এ কার মালিক ও চালক সমিতি। এসময়, সকল কার্যকরী সংগঠনের সমন্বয়ক মোঃ ইউনুছ মিয়া, রেন্ট এ কার মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম, চালক সমিতির সহ-সভাপতি খাইরুল ইসলাম, সম্পাদক কামাল হোসেন, সদস্য মোঃ হোসেনসহ মালিক ও চালক সমিতির সকল সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরিবহণ মালিক-শ্রমিক নেতারা এসময় দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত মাইক্রোবাস চালক সজীবের খুনিদের খুজে বের করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

উল্লেখ্য, দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত রাঙামাটি জেলার নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে গত শুক্রবার সকালে একই উপজেলার বেতছড়ি এলাকায় দুর্বৃত্তদের পাঁচজন নিহত ও আটজন গুলিবিদ্ধ হয়। এছাড়া গত ১৬ এপ্রিল খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙা উপজেলার তিন বাসিন্দা কাঠ ব্যবসায়ী সালাউদ্দীন, মহরম আলী ও গাড়িচালক বাহার মিয়া জেলার মহালছড়ির মাইসছড়ি থেকে নিখোঁজ হন। ১৯ দিন পরও তাদের উদ্ধার করতে পারেনি প্রশাসন।

সিভয়েস/পিসি/এমআইএম

59

Nagad

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়