Cvoice24.com

চট্টগ্রাম চেম্বারের সঙ্গে রাষ্ট্রদূতের মতবিনিময়
ইন্দোনেশিয়ায় ওষুধ পাটপণ্য ও সুতা রপ্তানির সম্ভাবনা উঁকি দিচ্ছে

সিভয়েস২৪ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০:১৩, ১৯ মে ২০২৪
ইন্দোনেশিয়ায় ওষুধ পাটপণ্য ও সুতা রপ্তানির সম্ভাবনা উঁকি দিচ্ছে

চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত হেরু হারতান্তো সুবোলো। রবিবার (১৯ মে) সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি দূরীকরণে বাংলাদেশ থেকে ফার্মাসিউটিক্যালস, পাটজাত পণ্য এবং পুনর্ব্যবহারযোগ্য সুতা রপ্তানির সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু খাদ্য সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণে পিছিয়ে রয়েছে। ইন্দোনেশিয়া খাদ্য সংরক্ষণ ও হালাল ফুড রপ্তানিতে বিশ্বে নিজস্ব ব্র্যান্ড তৈরি করেছে। তাই বাংলাদেশের সাথে ইন্দোনেশিয়ার সম্পাদিত এগ্রিকালচার সমঝোতা স্মারক কার্যকর করতে গবেষণার উপর গুরুত্বারোপ করেন। 

এছাড়া নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে ইন্দোনেশিয়া চট্টগ্রামের মাতারবাড়ীতে ৫০০ মেগাওয়াটসম্পন্ন সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্প, ১০০ কি.মি. ট্রান্সমিশন লাইন, ভোলা ও বরিশাল অঞ্চলে গ্যাস পাইপ লাইন সম্প্রসারণে ইন্দোনেশিয়ান বিনিয়োগ প্রস্তাবের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন।
 
তিনি উভয়দেশের ট্যুরিজম, ম্যানুফ্যাকচারিং, ইনফাস্ট্রাকচার, ফুড এন্ড এগ্রিকালচার এবং রিনিউএ্যাবল এনার্জি সেক্টরে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্ভাবনার উপর তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন। একই সাথে চেম্বার নেতৃবৃন্দের অনুরোধের প্রেক্ষিতে ইন্দোনেশিয়া-বাংলাদেশ অন এরাইবেল ভিসা চালুকরণের উদ্দেশ্যে সরকারের সাথে আলোচনা করবেন বলে জানান।    
চট্টগ্রামের বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি ভৌগোলিক সুবিধা তুলে ধরে চেম্বার সভাপতি ওমর হাজ্জাজ বলেন, খাদ্য উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের মোট খাদ্য উৎপাদনের এক-তৃতীয়াংশ বা ৩ বিলিয়ন ডলার সংরক্ষণ কিংবা প্রক্রিয়াজাতকরণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আবার বিশ্বব্যাপী হালাল ফুড এবং খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণে সুনাম রয়েছে ইন্দোনেশিয়ার। তাই বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষের বিশাল বাজার ধরা ও রপ্তানিতে ইন্দোনেশিয়ান ব্যবসায়ীদের একক বা যৌথ বিনিয়োগের আহ্বান জানান। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ইন্দোনেশিয়া থেকে ৩.৫ বিলিয়ন ডলার আমদানি করে। যার মধ্যে পামওয়েল, কয়লা, সিমেন্ট ক্লিংকার, পেট্রোলিয়াম প্রোডাক্টসহ কৃষি পণ্য আমদানি করে। বাংলাদেশ ইন্দোনেশিয়ায় তৈরি পোশাক ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করে। অথচ বাংলাদেশের রয়েছে বিশ্ব বিখ্যাত ফার্মাসিউটিক্যালস প্রোডাক্ট। তিনি প্রেফারেন্সিয়াল ট্রেড এগ্রিমেন্ট (পিটিএ) চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে ফার্মাসিউটিক্যালস প্রোডাক্টস রপ্তানিতে রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন। একই সাথে ইন্দোনেশিয়াকে পার্টনার কান্ট্রি হিসেবে এবং ইন্দোনেশিয়ায় উৎপাদিত বিভিন্ন পণ্য ও প্রযুক্তির  পরিচিতকরণের লক্ষ্যে সেদেশের উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের বেসরকারি খাতের সর্ববৃহৎ চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানান। পাশাপাশি উভয়দেশের ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষের মাঝে যোগাযোগ বৃদ্ধিসহ যাতায়াত ব্যবস্থাকে আরো সহজীকরণের লক্ষ্যে ইন্দোনেশিয়া অন এ্যারাইভাল ভিসা পুনরায় চালু করণের উপর গুরুত্বারোপ করে রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন। 

অন্যান্য বক্তারা বলেন, চট্টগ্রাম প্রধান বাণিজ্য নগরী। ইন্দোনেশিয়ার রপ্তানি পণ্যের অধিকাংশ বিশেষ করে কয়লা, সিমেন্ট ক্লিংকার, ইন্ডাস্ট্রিয়াল কেমিক্যালসহ বিভিন্ন পণ্য চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে খালাস হয়। ফলে চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক অধিকাংশ ব্যবসায়ী ইন্দোনেশিয়ার সাথে যোগাযোগ বাড়ছে। চট্টগ্রাম থেকে ভিসা প্রক্রিয়াকরণের লক্ষ্যে কাউন্সেল অফিস, ফ্লাইট কানেক্টিভিটি বৃদ্ধিসহ পাম ট্রি এবং রাবার উৎপাদনে ইন্দোনেশিয়ান বিনিয়োগের আহ্বান জানান। পাশাপাশি আসিয়ানভূক্ত দেশ হিসেবে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ইন্দোনেশিয়ার সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন বক্তারা। 

এ সময় পরিচালকদের মধ্যে একেএম. আক্তার হোসেন,  জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), অঞ্জন শেখর দাশ, মাহফুজুল হক শাহ, মাহবুবুল হক মিয়া, মোহাম্মদ মনির উদ্দিন ও আখতার উদ্দিন মাহমুদ বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যদের মধ্যে দূতাবাসের এ্যাটাচে রব্বি ফিরলি হারখাও ইকোনমিক এ্যাফেয়ার্স সপ্তো রুদিয়ান্তোসহ চেম্বার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়