Cvoice24.com

‘ঘুমাতে পারিনি, বাবাকে নিয়ে বেড়াব আর ঘুরব’

মিনহাজ মুহী ও রবিউল রবি, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে

প্রকাশিত: ১৭:২৬, ১৪ মে ২০২৪
‘ঘুমাতে পারিনি, বাবাকে নিয়ে বেড়াব আর ঘুরব’

‘বাবার জন্য পুরো ঘর খালি ছিল। ঈদটাও ভালোভাবে কাটাতে পারিনি৷ ঘুমাতে পারিনি। কখন বাবা আসবে, বাবাকে দেখতে পাব; মায়ের কাছে সবসময় এসবই জিজ্ঞেস করতাম। আজ ঠিকই বাবার কাছে। বাবার পাশে। সামনে পরীক্ষা আছে, সেগুলো শেষ করে বাবাকে নিয়ে বেড়াবো আর ঘুরবো।’

দীর্ঘ দুই মাস পর বাবাকে কাছে পেয়ে এসব বলছিল এমভি আবদুল্লাহর চিফ অফিসার ক্যাপ্টেন মো. আতিক উল্লাহ খানের বড় মেয়ে ইয়াশরা। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ইয়ায়শরা জাহাজ থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গেই ছোট বোন উনাইজা নিয়ে বাবার কাছে দৌঁড়ে গিয়ে জড়িয়ে ধরে বাবাকে।

ইয়াশরা আরও বলেছে, ‘আমি আমার আরেক বোন এখানে এসেছি। আমার ছোট বোন বাসায়৷ তার এখনো দুই বছর বয়স। তাই তাকে এখানে আনা হয়নি।’

ক্যাপ্টেন আতিক উল্লাহ খান বলেন, ‘বিভৎস দিন থেকে আলোর দিনে ফিরেছি। দুঃসহ সেই স্মৃতির কথা আর মনে করতে চাই না। ট্রমা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছি। আপনারা দোয়ার করবেন। দুই সন্তানকে কাছে পেলাম। বাসায় আরেক সন্তান কান্না করছে। তাঁর কাছে ফিরতে হবে দ্রুত।’

এর আগে মঙ্গলবার (১৪ মে) বিকেল ৩টা ৫০ মিনিটের দিকে নোঙর করে জলদস্যুমুক্ত ২৩ নাবিক বহনকারী লাইটারেজ জাহাজ জাহান মনি-৩। এর কিছুক্ষণ পরই তারা নিচে নেমে আসেন। সেখানে তাঁদের অপেক্ষায় ছিলেন স্বজনরা। স্বজনদের কাছে পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তারা। পরে তাদের লালগালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল ও সচিব ওমর ফারুক,  কেএসআরএম গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক সরওয়ার জাহান রোকন, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত ও  প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেরুল করিম।

সিভয়েস/

আরও পড়ুন:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়