Cvoice24.com

তিন দফা ডাকেও সাড়া নেই ইজারাদারের

সিভয়েস২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:৪১, ১৫ মে ২০২৪
তিন দফা ডাকেও সাড়া নেই ইজারাদারের

সাগরিকা গরু বাজার ও বিবিরহাট বাজারের জন্য তিন দফা ‘ডাক ডেকেও’ ইজারাদার পাচ্ছে না চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। এবার সাগরিকা গরুর বাজারের জন্য ইজারা দর নির্ধারণ করা হয়েছে ৮ কোটি ৮৯ লাখ ১ হাজার ৯০৭ টাকা আর বিবির হাট গরুর বাজারের জন্য ২ কোটি ২৭ লাখ ৯৬ হাজার ৭৭৭ টাকা। ইজারাদার না পাওয়ায় বর্তমানে সাগরিকায় আগের ইজারাদার আর বিবিরহাটে খাস কালেকশনের মাধ্যমে রাজস্ব আদায় করছে সংস্থাটি।

গত ১৩ মে তৃতীয়বারের মতো দরপত্র আহ্বান করে চসিক। কিন্তু দরপত্রে অংশ নিতে এখন পর্যন্ত কেউ সাড়া দেয়নি।

এদিকে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে এবার স্থায়ী-অস্থায়ী মিলে ১২টি পশুর হাট বসাতে চায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। এর মধ্যে তিনটি স্থায়ী এবং ৯টি অস্থায়ী হাট। অস্থায়ী এসব পশুর হাট বসানোর জন্য অনুমতি চেয়ে জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদনও করেছে সংস্থাটি। অবশ্য প্রস্তাবিত পশুর হাটগুলোর বিষয়ে নগর পুলিশের মতামত পাওয়ার পর চসিককে সিদ্ধান্ত জানাবে জেলা প্রশাসন। অনুমতি পাওয়ার পর দশ দিনের জন্য এসব পশুরহাট ইজারা দেওয়া হবে।  

এদিকে, বর্তমানে নগরে তিনটি স্থায়ী পশুর হাট রয়েছে। এগুলো হচ্ছে—সাগরিকা, বিবিরহাট ও পোস্তারপাড় বাজার। গত কোরবানির ঈদে তিনটি স্থায়ী পশুর হাটের পাশাপাশি আরও ২৩টি স্থানে অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর অনুমতি চেয়েছিল চসিক। পরবর্তীতে স্থায়ী তিনটি হাট ছাড়াও শর্তসাপেক্ষে ৯টি স্থানে অস্থায়ী পশুর হাট বসাতে সিটি করপোরেশনকে (চসিক) অনুমতি দেয় জেলা প্রশাসন। 

কিন্তু জেলা প্রশাসন থেকে অনুমোদন দেরিতে দেওয়ায় শেষ পর্যন্ত দুটি পশুর হাটের ইজারাদার পায়নি চসিক। একইসাথে দ্বিতীয় দফায় দরপত্র আহ্বানের সুযোগ না থাকায় ওই দুইটি হাটের ইজারা কার্যকম বন্ধ রাখে সংস্থাটি। সাতটি হাটের জন্য ইজারাদার পেলেও অনেকটা পানির দামেই ইজারা দিতে বাধ্য হয় চসিক। শেষে স্থায়ী-অস্থায়ী মিলে ১০টি স্থানে পশুর হাট বসে চট্টগ্রামে। 

এবারে চসিকের প্রস্তাবিত ৯টি অস্থায়ী পশুর হাট হলো— এক নম্বর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের চৌধুরীহাট, তিন নম্বর পাঁচলাইশ ওয়ার্ডের ওয়াজেদিয়া মোড়, ছয় নম্বর পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ডের কর্ণফুলী গরু বাজার (নুর নগর হাউজিং এস্টেট), ২৬ নম্বর উত্তর হালিশহর ওয়ার্ডের বড়পোল সংলগ্ন মহেশখালের দুই পাড়ের খালি জায়গা, ৩৮ নম্বর দক্ষিণ মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডের সল্টগোলা রেলক্রসিং সংলগ্ন হাট, ৩৯ নম্বর দক্ষিণ হালিশহর ওয়ার্ডের আউটার রিং রোডের সিডিএ বালুর মাঠ, ৪০ নম্বর উত্তর পতেঙ্গা ওয়ার্ডের পূর্ব হোসেন আহম্মদ পাড়া সাইলো রোডের পাশে টিএসপি মাঠ ও মুসলিমাবাদ রোডের সিআইপি জসিমের খালি মাঠ, এবং ৪১ নম্বর দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ডের বাটারফ্লাই পার্কের দক্ষিণে টি কে গ্রুপের খালি মাঠ। 

এ বিষয়ে চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মুহম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর জন্য জেলা প্রশাসনের অনুমতি চাওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসন সিএমপির মতামত পাওয়ার পর আমাদের সিদ্ধান্ত জানাবেন। এরপর আমরা দরপত্র কার্যক্রম শুরু করব।’

সিটি করপোরেশনের রাজস্ব বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নগরের ৯টি স্থানে অস্থায়ী হাট বসানোর অনুমতি চেয়ে গত ৯ এপ্রিল জেলা প্রশাসক বরাবর চিঠি দিয়েছে চসিক। এতে বলা হয়, স্থানীয় জনসাধারণ ও জনপ্রতিনিধিদের চাহিদার ভিত্তিতে কোরবানির পশুর চাহিদা মিটাতে অস্থায়ীভাবে পশু বাজার ইজারা প্রদানের জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। পরবর্তীতে গত ৫ মে জেলা প্রশাসন, সিএমপি কমিশনারের কাছে মতামত চায়। যদিও চিঠিটি গত ১৩ মে সন্ধ্যায় হাতে পেয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ বিষয়ে চলতি সপ্তাহের ভেতর বৈঠক বসবে সিএমপিতে। গোয়েন্দা প্রতিবেদন এবং সার্বিক যাচাই-বাছাই শেষে পুলিশের মতামতের প্রেক্ষিতে নগরে অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর অনুমতি দিবে জেলা প্রশাসন। 

জানতে চাইলে নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) কাজী মো. তারেক আজিজ বলেন, ‘জেলা প্রশাসন থেকে গতকালই চিঠি পেয়েছি আমরা। আমাদের কাজ চলছে। গোয়েন্দা প্রতিবেদন এবং সার্বিক যাচাই-বাছাই শেষে আমাদের পক্ষ থেকে মতামত দেওয়া হবে।’ 

অন্যদিকে, গতবার সাগরিকা গরুর বাজারে আশিকুর রহমান রাব্বি চৌধুরী নামের একজন ও পোস্তারপাড় ছাগল বাজারে মো. রাজু নামের এক ইাজারাদারকে নিয়োগ করে চসিক। ইজারা নীতিমালা অনুসারে, যে কোন হাট বাজার বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে এক বছরের জন্য ইজারা দেওয়া হয়। যার মেয়াদকাল পহেলা বৈশাখ থেকে শুরু হয়ে ৩০ চৈত্র শেষ হয়। সেই হিসেবে গত ৩০ চৈত্র অর্থাৎ ১৩ এপ্রিল ইজারাদারের সময় শেষ হয়ে যায়। এরমধ্যে সাগরিকা গরুর বাজারের ইজারাদার আশিকুর রহমান রাব্বি চৌধুরীর কাছে বর্তমানে ইজারা বাবদ ৪৪ লাখ টাকা বকেয়া রয়েছে। 

প্রসঙ্গত, প্রতি বছর ১ থেকে ১০ জিলহজ্ব চসিকরে ব্যবস্থাপনার পবিত্র কোরবানির পশুর হাট বসে নগরে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এবার আগামী ৮ জুন থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত হাট বসতে পারে। যদিও গতবারের (২০২৩ সালে) মতো ২০২২ সালেও ১০টি অস্থায়ী হাট বসানোর অনুমতি চেয়ে জেলা প্রশাসনে আবেদন করে চসিক। অনুমতি পাওয়ার পর চসিক চারটিতে ইজারাদার নিয়োগ দিলেও শেষ পর্যন্ত বাজার বসে তিনটিতে। ২০২২ ও ২০২১ সালে স্থায়ী–অস্থায়ী মিলে ছয়টি করে পশুর হাট বসেছিল চসিকের ব্যবস্থাপনায়। এর আগে ২০২০ সালে অস্থায়ী চারটিসহ মোট হাট বসেছিল সাতটি।

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়