Cvoice24.com

জাহেদ জসিম মুজাম্মেল দিদার জয়ী

সিভয়েস২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:০৮, ২৯ মে ২০২৪
জাহেদ জসিম মুজাম্মেল দিদার জয়ী

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, চন্দনাইশ, পটিয়া ও আনোয়ারা উপজেলায় ভোটগণনা শেষ হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন বোয়ালখালীতে জাহেদুল হক, চন্দনাইশে জসিম উদ্দিন আহমেদ এবং আনোয়ারায় কাজী মুজাম্মেল হক ও পটিয়ায় দিদারুল আলম। 

ওই চার উপজেলায় বুধবার (২৯ মে) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল আটটা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ করা হয়।

বোয়ালখালী : চেয়ারম্যানে পদে বোয়ালখালীতে জয়ী হয়েছেন হেলিকপ্টার প্রতীকের প্রার্থী জাহেদুল হক। তিনি ভোট পেয়েছেন ৩০ হাজার ৫৭৭ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রার্থী আনারস প্রতীকের মোহাম্মদ শফিক পেয়েছে ১৯ হাজার ১১০ ভোট। এছাড়া দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে রেজাউল করিম পেয়েছেন ১১ হাজার ৫৩৭ ভোট, মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে মো. নুরুল আমিন চৌধুরী পেয়েছেন ৯ হাজার ২৫১ ভোট, ঘোড়া প্রতীক নিয়ে মো. শফিউল আলম পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৬১ ভোট, কাপ পিরিচ প্রতীক নিয়ে এস. এম সেলিম পেয়েছেন ৮৩৪ ভোট ও টেলিফোন প্রতীক নিয়ে এস. এম নুরুল ইসলাম পেয়েছেন ৪৭৫ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন মোহাম্মদ মীর নওশাদ। টিউবওয়েল প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৩১ হাজার ৩১০ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তালা প্রতীকের মো. সেলিম উদ্দীন পেয়েছেন ১৪ হাজার ৪৩৮ ভোট। এছাড়া, উড়োজাহাজ প্রতীকের সজল কান্তি চৌধুরী পেয়েছেন ১২ হাজার ৩৭১ ভোট এবং টিয়াপাখি প্রতীক নিয়ে মো. শফিকুল আলম পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৭৬ ভোট।

অপরদিকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ফুটবল প্রতীকের উম্মে সালমা। তিনি পেয়েছেন ৩১ হাজার ৩৯ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রজাপতি প্রতীকের শামীম আরা বেগম পেয়েছেন ২৮ হাজার ৪০১ ভোট। কলস প্রতীক নিয়ে মর্জিনা বেগম পেয়েছেন ১৫ হাজার ৯৬৭ ভোট।

চন্দনাইশ : চন্দনাইশের মোটর সাইকেল প্রতীকের জসিম উদ্দিন আহমেদ ৩৮ হাজার ৩৯ ভোট চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতীকের আবু আহমদ চৌধুরী জুনু পেয়েছেন ২২ হাজার ৭৪ হাজার ভোট। এছাড়া, চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকের প্রার্থী আহমদ হোসেন ফকির পেয়েছেন ৪০২ ভোট এবং দোয়াত কলম প্রতীকের আরিফুল ইসলাম চৌধুরী খোকন পেয়েছেন ১৯৭ ভোট। তবে তিনি নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবারও নির্বাচিত মাওলানা সোলাইমান ফারুকী বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীক নিয়ে সর্বোচ্চ ৪৪ হাজার ৭১৩ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পরপর তিন বার নির্বাচিত হয়ে হ্যাট্রিক পূর্ণ করেছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী  উড়োজাহাজ প্রতীকের রুপম দেব পেয়েছেন ৮ হাজার ২১৯ ভোট। অপর প্রার্থী তালা প্রতীকের মো. একরামুল হোসেন পেয়েছেন ৬ হাজার ৫৩০ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কোন প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন খালেদা আকতার চৌধুরী।

পটিয়া : পটিয়ায় ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় একটি কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত করা হয়। ওই কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৬১৫। সেই কেন্দ্র ছাড়া পটিয়ায় দোয়াত-কলম প্রতীকের দিদারুল আলম দিদার ৫৬ হাজার ৫৪১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পৌর মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদ (আনারস প্রতীক) পেয়েছেন ৪৬ হাজার ১৪২ ভোট। 

ভাইস চেয়ারম্যান পদে উড়োজাহাজ প্রতীকের আবু ছালেহ মুহাম্মদ শাহরিয়ার পেয়েছেন ২৩ হাজার ৮৫০ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ডা. এমদাদুল হাসান (বই) ২৩ হাজার ৭৩ ভোট। এছাড়া, ঝুলন দত্ত (চশমা) ১৯ হাজার ৮৮৯ ভোট, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দীন (টিউবওয়েল) ১১ হাজার ৩০৭ ভোট, সাইফুল হাসান টিটু (মাইক) ৭ হাজার ৩২৩ ভোট, মোজাম্মেল হোসেন (টিয়া পাখি) ৬ হাজার ৭২৭ ভোট, মুহাম্মদ বেলাল (বৈদ্যুতিক বাল্ব) ৪ হাজার ৯৫৭ ভোট ও আশীষ তালুকদার (তালা) ৩ হাজার ১৬৯ ভোট পেয়েছেন।

অন্যদিকে কলস প্রতীকের মাজেদা বেগম শিরু ২৪ হাজার ৮৯৪ ভোট পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাজেদা বেগম (প্রজাপতি) পেয়েছেন ২৪ হাজার ৭৩১ ভোট। এছাড়া, কানিজ ফাতেমা (পদ্ম ফুল) ২১ হাজার ১৩৭ ভোট, সুমি দে (বৈদ্যুতিক পাখা) ১৪ হাজার ৫৩৬ ভোট, মনুর আয়েশা বেগম (ফুটবল)-১০ হাজার ৪৩ ভোট এবং আফরোজা বেগম (হাঁস) ২ হাজার ৩০৯ ভোট পেয়েছেন।

আনোয়ারা : আনোয়ারায় অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়েশা খানের ‘প্রার্থী’ কাজী মুজাম্মেল পেয়েছেন ৫৮ হাজার ৮৩০ ভোট। আর সাবেক ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান জাবেদের ‘প্রার্থী’ তৌহিদুল হক চৌধুরী পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৮০৭ ভোট। এছাড়া, প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করে তৌহিদুল হক চৌধুরীকে সমর্থন করে নির্বাচনের মাঠ থেকে সরে যাওয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মান্নান চৌধুরী পেয়েছেন ৩৩০ ভোট। 

ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩১ হাজার ১৫৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুল মন্নান মান্না (চশমা প্রতীক)। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আবু জাফর (টিয়া পাখি প্রতীক) ৩০ হাজার ৪৩৭ ভোট। সুগ্রীব মজুমদার দোলন (তালা প্রতীক) পেয়েছেন ১৯ হাজার ৯৭১ ভোট, যুবলীগ নেতা সালাউদ্দিন (টিউব ওয়েল প্রতীক) ৬ হাজার ৬১৮ ভোট, সন্তোষ কুমার দে (বই প্রতীক) ৩ হাজার ৫৫৪ ভোট এবং প্রদীপ দত্ত (মাইক প্রতীক) পেয়েছেন ২ হাজার ৩৪৮ ভোট। 

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন তরুণ প্রার্থী হাঁস প্রতীকের অ্যাডভোকেট চুমকি চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন ৪৫ হাজার ৯৪০ ভোট। তাঁর পারভীন আকতার (কলস) পেয়েছেন ২৫ হাজার ৮২ ভোট। আরেক প্রার্থী মরিয়ম বেগম (ফুটবল) পেয়েছেন ২৩ হাজার ৪৮০ ভোট।

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়