Cvoice24.com

কক্সবাজারে কটেজের আড়ালে ‘টর্চার সেল’, আটক ১১ দালাল

কক্সবাজার প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৩:১৫, ৮ আগস্ট ২০২২
কক্সবাজারে কটেজের আড়ালে ‘টর্চার সেল’,  আটক ১১ দালাল

কক্সবাজার শহরের কলাতলীর কটেজ জোনে সস্তা কক্ষ দেওয়ার কথা বলে পর্যটককে হয়রানি ও আটকে রাখার অভিযোগে ১১জন দালালকে আটক করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। এসময় কটেজে আটকে থাকা চারজনকে উদ্ধার করা হয়েছে। 

রোববার (৭ আগস্ট) রাতে শিউলি কটেজ বন্দিদশা থেকে চারজনকে উদ্ধার এবং বিভিন্ন স্থান থেকে বিচ্ছিন্নভাবে মোট ১১ দালালকে আটক করা হয়।  উদ্ধার হওয়াদের মধ্যে দুইজন শিশু ও দুইজন যুবক রয়েছে। শিশু দুটির বাড়ি কক্সবাজারের বাস টার্মিনাল এলাকার দক্ষিণ ডিককুল ও দুই যুবকের বাড়ি টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ ও সাতকানিয়ায়। 

ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম সাংবাদিকদের জানান, দালালরা ভুল বুঝিয়ে কটেজ জোনের শিউলি কটেজে নিয়ে গিয়ে কয়েকজন পর্যটককে আটকে রাখার খবর পায় ট্যুরিস্ট পুলিশ। এই খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালিয়ে বন্দি চারজনকে উদ্ধার করা হয়। তবে পিছনের গোপন পথ দিয়ে পালিয়ে যায় অপরাধীরা। একই সাথে সারারাত কটেজ জোনের বিভিন্ন স্থানে পৃথক পৃথক অভিযান চালিয়ে ১১জন দালালকে আটক করা হয়। 

উদ্ধার হওয়া ভুক্তভোগীদের উদ্ধৃতি দিয়ে ট্যুরিস্ট পুলিশের এই কর্মকতা বলেন, ভুক্তভোগীদের দুইজন রোগী নিয়ে হাসপাতালে এসে রাত কাটানোর জন্য সস্তা কক্ষ খুঁজতে কটেজ জোনে যায়। সেখানে পথিমধ্যে দালালের খপ্পরে পড়ে তারা। দালালরা কম দামের কক্ষের কথা বলে শিউলি কটেজে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে গিয়ে আরো অধিক দাম দাবি করে। তা না দেয়ায় তাদের কক্ষের মধ্যে আটকে রেখে বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে দেয়া হয়। 

অন্যদিকে উদ্ধার হওয়া দুই যুবককেও কম দামের কক্ষের কথা বলে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে গিয়ে অধিক দাম দাবি করা হয়। তাতে রাজি না হওয়ায় কটেজে থাকা খারাপ মেয়েদের সাথে ছবি তুলে চাঁদা আদায়ের চেষ্টা করে। না দেয়ায় তাদেরও আটকে রাখা হয়। 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে কটেজ জোন কেন্দ্রিক গড়ে উঠা অপরাধীরা নানা অপরাধ কর্মকান্ড চালাচ্ছে। এর মধ্যে পর্যটক হয়রানি, অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, অসামাজিক কার্যকলাপসহ আরো নানা অপরাধ কর্মকান্ড চালাচ্ছে। এসব অপরাধীকে আইনের আওতায় আনতে ট্যুরিস্ট পুলিশ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।
 

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়