Cvoice24.com

চবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের ওপর আস্থা নেই ৯৪ নেতার

চবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৪:৪২, ১০ আগস্ট ২০২২
চবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের ওপর আস্থা নেই ৯৪ নেতার

সংবাদ সম্মেলনকারীরা সবাই নাছির ভাইয়ের অনুসারী

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল ও সাধারণ সম্পাদকের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করেছে ৩০ জন সহ-সভাপতিসহ মোট ৯৪ জন নেতৃবৃন্দ। এসময় ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদবঞ্চিত ত্যাগী ও পরিশ্রমী কর্মীদের মূল্যায়নসহ ৩ দফা দাবি জানান তারা। 

বুধবার (১০ আগস্ট) চবি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (চবিসাস) কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব বিষয় জানানো হয়।

দাবি সমূহ—
পদবঞ্চিত ত্যাগী ও পরিশ্রমী কর্মীদের মূল্যায়ন করে কমিটিতে অন্তর্ভুক্তকরণ, কমিটিতে পদপ্রাপ্ত নেতাদের যোগ্যতা অনুযায়ী যোগ্যস্থানে ক্রমানুসারে পুনর্মূল্যায়ন করা ও উক্ত কমিটিতে পদপ্রাপ্ত বিবাহিত, চাকরিজীবী ও দীর্ঘদিন রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখে যথাযথ সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ। এসময় আদায় না হলে আগস্ট মাসের পর কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও ভিএক্স গ্রুপের নেতা প্রদীপ চক্রবর্তী দুর্জয়। তিনি বলেন, গত ৩১ জুলাই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার বহুল প্রতীক্ষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এখানে উল্লেখ্য যে, দুই সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণার দীর্ঘ ৩ বছর পর এই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। যা ২ বছর পূর্বেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে। উক্ত কমিটিতে রাজপথের পরিক্ষীত ও ত্যাগী কর্মীদের বাদ দিয়ে অযোগ্য ও বিতর্কিত অনেককে কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে। যা সংগঠনকে ভবিষ্যতে পঙ্গুত্বের দিকে ঠেলে দিবে। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নিকট আমাদের আকুল আবেদন উপরোক্ত দাবীসমূহ বিবেচনা করে যথাযথ সাংগঠনিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হোক।

আরেক সহ-সভাপতি বাংলার মুখ গ্রুপের নেতা আবু বকর তোহা শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপুর নিকট প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে জানতে চাই, আমার গ্রুপের যে লিস্ট আমার নেতা আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দিন ভাইয়ের হাত থেকে আপনার হাতে (সেক্রেটারির) হাতে দেয়া হয়েছিল ওই লিস্টের সবাইকে পদ দেয়ার অঙ্গীকার আপনি (সেক্রেটারি) করেছিলেন। কিন্তু কমিটি হওয়ার পর দেখা যায় ওই লিস্টের মেক্সিমাম বাদ পরেছে। এর কারণ কী?

তিনি বলেন, ‘এতগুলা ভাই ও বোনকে বাদ দিয়ে গ্রুপটাকে ধ্বংস করার উদ্দেশ্যে জনাব সেক্রেটারি কাদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে চাইছে তা আমার বোধগম্য নয়। আশা করবো আমি যেটা চিন্তা করতেছি সেটা সত্য নয়। আমার নেতা আলহাজ আজম নাছির উদ্দিন ভাইয়ের হাতকে এত সহজে দুর্বল করতে দেয়া হবে না।’

তিনি আরও বলেন, আমি এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমার নেতা আলহাজ আজম নাছির উদ্দিন ভাই, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সংগ্রামী সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ভাই ও বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য দাদার কাছে আবেদন করছি দ্রুত আলহাজ আজম নাছির উদ্দিন ভাইয়ের লিস্টে যাদের নাম ছিলো ঐ লিস্টের বঞ্চিত সকলকে তাদের ত্যাগ ও রাজপথের পরিশ্রম বিবেচনা করে দ্রুত পুনরায় পুর্ণাঙ্গ কমিটি বর্ধিত করে আমাদের ভাই ও বোনদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হোক।

সংবাদ সম্মেলনে শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও রেড সিগনাল গ্রুপের নেতা, রাকিবুল হাসান দিনার, একাকার গ্রুপের নেতা মঈনুল ইসলাম রাসেল, কনকর্ড গ্রুপের নেতা আবরার শাহরিয়ার, উল্কা গ্রুপের নেতা সুমন খান ও এপিটাফ গ্রুপের নেতা সাজ্জাদ আনাম পিয়নসহ আরো অনেক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

-সিভয়েস/এমআর/পিবি

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়