Cvoice24.com

পুলিশ সদস্যের হাতের কব্জি কেটে নেওয়া সেই আসামি গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২:৩৮, ১৯ মে ২০২২
পুলিশ সদস্যের হাতের কব্জি কেটে নেওয়া সেই আসামি গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার

আসামি কবির।

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থানার পুলিশ সদস্যের হাতের কব্জি কেটে নেওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলার মূল আসামি কবিরকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সহযোগীসহ গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) রাতে লোহাগাড়া উপজেলার বড় হাতিয়ার গহীন পাহাড়ি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ১টি দা, ১টি ওয়ান শুটার গান, ৩ রাউন্ড গুলির খোসা, ৩ রাউন্ড তাজা গুলি, ২ টি হাসুয়া, ১টি ছুরি, ১৮০ পিস ইয়াবা, ২ টি মোবাইল ও ২টি সিম কার্ড উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন— লোহাগাড়ার মৃত আলী হোসেন ছেলে মো. কবির আহমদ ও একই এলাকার মৃত মোস্তাক আহাম্মদের ছেলে মো. কাফিল। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার। তিনি সিভেয়েস বলেন, চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশের কব্জি কেটে নেওয়ার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার মূল আসামি কবিরকে র‍্যাবের অভিযানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসময় কবিরের ছোরা গুলিতে র‍্যাবের এক সদস্য আহত হয়। 

গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেপ্তার মো. কবির আহমদ

তিনি আরো  বলেন, কনস্টেবল জনির হাতের কব্জি কেটে নেওয়ার পর থেকে সহযোগী কফিলকে নিয়ে বান্দরবানের দক্ষিণ হাংগর এলাকার একটি দুর্গম পাহাড়ে আত্মগোপন করে। পরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কবির তার সহযোগীসহ দ্রুত অবস্থান পরিবর্তন করে পুনরায় লোহাগাড়ার বড় হাতিয়ার গহীন পাহাড়ি এলাকায় অবস্থান নেয়। কবিরের সহযোগী কফিল একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। কফিল এলাকায় বিভিন্ন মাদক ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত। তার নামে বিভিন্ন থানায় মাদক, হত্যাচেষ্টা ও মারামারি সংক্রান্ত ৬টি মামলা রয়েছে। গ্রেপ্তারের পর আসামিদের থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। 

এর আগে, গত ১৬ মে সকালে লোহাগাড়া থানার এসআই ভক্ত দত্তের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম পরোয়ানাভুক্ত আসামি কবির আহমদকে গ্রেপ্তার করতে পদুয়া ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আধারমানিক লালারখিল এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কবির আহমদের বাহিনী ধারালো অস্ত্র নিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। তাদের ধারালো দায়ের কোপে পুলিশ কনস্টেবল জনির বাম হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। একই ঘটনায় আরও এক কনস্টেবল আহত হন। ঘটনার পর পরই পালিয়ে যান আসামি কবির আহম্মদ।

এ ঘটনায় রাতেই মামলা করে পুলিশ। মামলায় পলাতক আসামি কবির আহমদ, তার স্ত্রী ও মাকে আসামি করা হয়। পরে রাতে অভিযান চালিয়ে বান্দরবানের লামা থেকে আসামি কবিরের স্ত্রী রানু বেগমকে (২৫) গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়