Cvoice24.com

খাবারে ভ্যাট দিয়ে পুরস্কার জিতলেন চট্টগ্রামের দু’জন

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২:৩০, ২৭ অক্টোবর ২০২১
খাবারে ভ্যাট দিয়ে পুরস্কার জিতলেন চট্টগ্রামের দু’জন

সেপ্টেম্বর মাসে পণ্য কিনে ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) মেশিনে ভ্যাট দিয়ে লটারি জিতেছিলেন চট্টগ্রামের ১৩ জন। তাদের মধ্যে ১০ হাজার টাকা বিজয়ী দুইজনের হাতে চেক তুলে দেন চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট চট্টগ্রামের সম্মেলন কক্ষ সৈকতে এক অনুষ্ঠানে বিজয়ীর মাঝে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

পুরস্কার পাওয়া চট্টগ্রামের দুজন হলেন— রাউজানের অভিজিৎ দাশ ও ওয়াজেদ আলী।

চট্টগ্রাম কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট সূত্রে জানা গেছে, গত মাসে অভিজিৎ দাশ হাইওয়ে সুইটস থেকে ১ হাজার ৫৬৫ টাকার মিষ্টি ও ওয়াজেদ আলী হোটেল ডিলাইট থেকে ১ হাজার ১৯০ টাকার কেনাকাটা করে ইএফডি মেশিনে ভ্যাট দিয়েছিলেন। পুরস্কার পেতে তারা তাদের চালানের কপি, চালান নম্বর দিয়ে আবেদন করলে সব তথ্য যাচাই-বাছাই করে পুরস্কার তুলে দেয় ভ্যাট কর্মকর্তারা। 

পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ আকবর হোসেন বলেন, ইএফডি মেশিনের সাহায্যে নগরবাসী সহজেই পণ্যের উপর নির্ধারিত ভ্যাটের টাকা পরিশোধ করতে পারছেন। মানুষকে ভ্যাট প্রদানে উৎসাহিত করতে প্রতি মাসের ৫ তারিখে ফলাফল ঘোষণা করে দেয়া হচ্ছে পুরস্কার। এতে একদিকে সরকারি কোষাগারে টাকা বাড়ছে। অন্যদিকে মানুষ ভ্যাট দিতে আরও বেশি উৎসাহিত হচ্ছে। পুরস্কার পেতে হলে সবাইকে ইএফডি মেশিনে লেনদেন করে ভ্যাট চালানটি সংরক্ষণ করে প্রতি মাসের ৫ তারিখে প্রকাশিত লটারি ড্রয়ের দিকে নজর রাখতে হবে।’

ভ্যাট মেশিন আছে এমন প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা নিলেই শুধু লটারির জন্য বিবেচনা করা হবে। ভ্যাট মেশিন যে রশিদ দেবে সে রশিদ নম্বর ধরেই লটারি বিজয়ীদের ঘোষণা করা হয়। প্রতিমাসে ১০১ জন লটারির মাধ্যমে পুরস্কার জিতেন। প্রথম পুরস্কার ১ লাখ টাকা, দ্বিতীয় পুরস্কার ৫০ হাজার টাকা, তৃতীয় পুরস্কার ৫ জন ২৫ হাজার টাকা করে এবং বাকি ৯৪ জনকে ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কৃত করা হয়।

ভ্যাটের উপ-কমিশনার ফাতেমা খায়রুন নূরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত কমিশনার হাসান মো. তারেক স্বাগত বক্তব্য দেন। উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম কমিশনার মুশফিকুর রহমান ও সেলিম শেখসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। 

উল্লেখ্য, করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করতে নগরের বিভিন্ন হোটেল, শপিংমল, বিউটি পার্লার, পোশাকের দোকান, জিমসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বসানো হয়েছে ৫২০টি ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি) মেশিন। ফলে নগরবাসী সহজেই কোন পণ্য কিনে সরকারকে ভ্যাট দিতে পারছেন। এদিকে ভ্যাট দাতাদের মধ্য থেকে প্রতি মাসের ৫ তারিখে ১০১ জন বিজয়ীদের মধ্যে বিতরণ করা হয় আকর্ষণীয় পুরস্কার। এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে একদিকে করদাতাদের আগ্রহ বাড়ছে, অন্যদিকে রাজস্বও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়