Cvoice24.com

পৃথিবীতে রুপালি গিটারের জাদুকর বাচ্চুবিহীন ৪র্থ জন্মবার্ষিকী

ফিচার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:৩৯, ১৬ আগস্ট ২০২২
পৃথিবীতে রুপালি গিটারের জাদুকর বাচ্চুবিহীন ৪র্থ জন্মবার্ষিকী

নগরের স্টেশন রোডের পাশে বাইশ মহল্লার চৈতন্য গলি কবরস্থান। চারিদিকে সুনসান নিরবতা। কবরস্থানের একেবারে দক্ষিণ পাশে যেতেই চোখ পড়লো ফুলের চাদর বিছানো একটি কবর। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত রুপালি গিটার জাদুকর আইয়ুব বাচ্চু। ১৬ আগস্ট এই গিটার যাদুকরের জন্মদিন। তিনি বেঁচে থাকলে তাঁর ৬১ বছরে পদার্পণ হতো। আজও শ্রদ্ধাভরে তাকে স্মরণ করেছেন চট্টগ্রামের তরুণ শিল্পী ও ভক্তরা।

দেশের ব্যান্ডসঙ্গীতের কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চু। ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্ম নেন নন্দিত এই ব্যান্ড তারকা ও গিটার লিজেন্ড। ইসহাক চোধুরী এবং নুরজাহান বেগম দম্পতির তিন সন্তানের মধ্যে বাচ্চু ছিলেন সবার বড়। ধর্মীয় আবহের পরিবারে বেড়ে ওঠা বাচ্চুর সংগীতকে পরিবারের কেউই গ্রহণ করেননি। এরপরও তিনি দেশের আপামর সঙ্গীত ভক্তের কাছে হয়ে উঠেছেন রুপালি গিটারের জাদুকর। আজ তার ৬০তম জন্মদিন।

আইয়ুব বাচ্চুর বেড়ে উঠা চট্টগ্রামে। ৭০ দশকে স্কুলে থাকতে বাবার কাছ থেকে একটি গিটার উপহার পান। আর সেই থেকেই তার টুংটাং শুরু। কিশোর বয়সে প্রেমের পরেন পশ্চিমা সঙ্গীতের। হয়তো স্বপ্ন দেখতেন জিমি হেন্ড্রিক্স হওয়ার। যাকে আইয়ুব বাচ্চুর টিশার্টে প্রায় দেখা যেত।

দেশের টিভির এক অনুষ্ঠানে আইয়ুব বাচ্চু প্রথম দেখলেন আজম খানের পারফর্মেন্স। তার সঙ্গে ঝাঁকড়া চুলে গিটার বাজাচ্ছিলেন দেশের কিংবদন্তী গিটারিস্ট নয়ন মুন্সি। মুগ্ধ হয়ে যান আইয়ুব বাচ্চু। তখন থেকে নেশা চড়ে যায়। তাই কলেজ জীবনে বন্ধুদের নিয়ে একটি ব্যান্ড গড়লেন। নাম দিলেন “গোল্ডেন বয়েজ”।

চট্টগ্রামে সেই সময়ে বেশ জনপ্রিয় “ফিলিংস” ব্যান্ড। আইয়ুব বাচ্চুর ইচ্ছা ছিল সেই ব্যান্ডে জয়েন করার। কুমার বিশ্বজিতের সঙ্গে যেহেতু আগেই পরিচয় ছিল তাই সেই ইচ্ছাটাও পুরোন হলো। এতে আইয়ুব বাচ্চু তার গিটারের প্র্যাকটিস আরও ভালোভাবে করার সুযোগ পেয়ে যান। আর তার উদ্দেশ্য ছিল মূলত এটাই। এটা ছিল ১৯৭৮ সালের কথা।

এরপর ১৬ বছর বয়সে “ফিলিংস” থেকে আইয়ুব বাচ্চু প্রথম গান রেকর্ড করেন। শিরোনাম “হারানো বিকেলের গল্প”। গীতিকার ছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী। ব্যান্ডটিতে তিন বছরের মতো ছিলেন আইয়ুব বাচ্চু। পরবর্তীতে যোগ দেন চট্টগ্রামের আরও একটি জনপ্রিয় ব্যান্ড “সোলস”-এ।

সোলস তখন ছিল চট্টগ্রাম ভিত্তিক ব্যান্ডদল। যদিও ৮২ সালের দিকে সোলস ব্যান্ড ঢাকায় মুভ করে। যার কারণে আইয়ুব বাচ্চুও ঢাকায় চলে আসেন। সেই সময়েই সোলসের প্রথম অ্যালবাম, “সুপার সোলস” রিলিজ হয়।

এক সাক্ষাৎকারে আইয়ুব বাচ্চু বলেছিলেন, “১৯৮৩ সালের শেষের দিকে মাত্র ৬০০ টাকা নিয়ে এসেছিলাম। উঠেছিলাম এলিফ্যান্ট রোডের একটি হোটেলে। তখন এখানে আমার অনেক আত্মীয়স্বজন থাকতেন। আমি কারও কাছেই যাইনি। বিপদে কারও মুখাপেক্ষীও হইনি। নিজেকে গড়ে তুলেছি। দিনরাত্রি কাজ করে একটা অবস্থানে পৌঁছাতে পেরেছি।”

১৯৮৬ সালে “সোলস”-এ থাকা অবস্থায় নিজের প্রথম একক অ্যালবাম, “রক্তগোলাপ” প্রকাশ করেন আইয়ুব বাচ্চু। এই অ্যালবামের সুর ও সঙ্গীত ছিল তার নিজেরই। কিন্তু এখানে মজার ব্যাপার হলো, অ্যালবামের কভারে সুর ও সঙ্গীতের জায়গায় তিনি তার ডাকনাম “রবিন” ব্যবহার করেন এবং শিল্পীর স্থানে আইয়ুব বাচ্চু ব্যবহার করেন।

ব্যান্ডে আইয়ুব বাচ্চু বেশ সম্ভাবনাময়ী হয়ে উঠলেও একক অ্যালবাম দিয়ে খুব একটা সুবিধা করতে পারলেন না। তবে তিনি থেমে যাননি। ১৯৮৯ সালে প্রকাশ করেন দ্বিতীয় অ্যালবাম “ময়না”। প্রযোজনায় ছিল তৎকালীন স্বনামধন্য অডিও প্রতিষ্ঠান “সারগাম”। পেছনের ব্যর্থতাকে এবার ছাপিয়ে পান সফলতা। আইয়ুব বাচ্চুর ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে ধরা হয়।

১৯৯০ সালে সোলস’র সঙ্গে পথচলার ইতি টানেন আইয়ুব বাচ্চু। উদ্দেশ্য ছিল নিজের ব্যান্ড প্রতিষ্ঠা করা। যার ফলপ্রুস ১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল জন্ম নিল “এলআরবি”। ১৯৯২ সালে “এলআরবি ১ ও ২” ডাবল অ্যালবাম প্রকাশ করে বাংলা ব্যান্ড সঙ্গীতে ইতিহাস তৈরি করে “এলআরবি”। মূলত এই অ্যালবামের অনুপ্রেরণা আইয়ুব বাচ্চু পান ইংলিশ রক ব্যান্ড পিংক ফ্লয়েডের ১৯৭৯ সালের প্রকাশ হওয়া “দ্য ওয়াল” থেকে।

পরবর্তীতে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে “এলআরবি”-র দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম “সুখ” ও “তবুও”। অ্যালবাম দুটির উল্লেখযোগ্য গান মধ্যে “চলো বদলে যাই”, “রূপালি গিটার”, “গতকাল রাতে” সেই সময় সবার মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে। ১৯৯৫ সালে আইয়ুব বাচ্চু বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম “কষ্ট”। এটিকে সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অবিহিত করা হয়। এই অ্যালবামের প্রায় সবগুলো গানই জনপ্রিয়তা পায়। বিশেষ করে কষ্ট কাকে বলে, কষ্ট পেতে ভালোবাসি, অবাক হৃদয়, ও আমিও মানুষ। একই বছর “এলআরবি”-র চতুর্থ ব্যান্ড অ্যালবাম “ঘুমন্ত শহরে” প্রকাশিত হয়।

পুরো ক্যারিয়ারে নতুন গান তৈরিতে কখনও থেমে যাননি আইয়ুব বাচ্চু। ২০১৫ সাল পর্যন্ত তার অ্যালবাম রিলিজ হয়েছে। আইয়ুব বাচ্চু এমন একটি নাম স্টেজে যার গিটারের জাদুতে মেতে থাকতেন ভক্তরা। এ যেন অদ্ভুত এক দ্যোতানা তৈরি করে। একদিন সেই সুর থেমে গেল কারণ ২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ না ফেরার দেশে চলে যান এই কিংবদন্তী।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে আইয়ুব বাচ্চু শুধু নিজেই মিউজিক করেননি। অন্যতম গিটার বাদকও বটে। আর সেই সূত্র ধরে তিনি বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের অনেক গিটার বাদক অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে উঠলেন। এমনকি দেশে বাংলা ব্যান্ড সঙ্গীতকে এগিয়ে নিয়ে যেতে তার অবদান ছিল অন্যতম।

৪০ বছরের গায়কী জীবনে ১২টি ব্যান্ড, ১৬টি একক ও বহু মিশ্র অ্যালবাম প্রকাশ হয়েছে আইয়ুব বাচ্চুর। এসবের পাশাপাশি গান গেয়েছেন বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও। তার অসংখ্য দর্শকপ্রিয় গানের তালিকায় ‘সুখ’, ‘একদিন ঘুম ভাঙা শহরে’, ‘ফেরারি মন’, ‘এই রুপালি গিটার’, ‘হাসতে দেখো’, ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’, ‘চলো বদলে যাই’ সহ আছে বহু নাম।

২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর আইয়ুব বাচ্চু হঠাৎ করেই তার অগণিত ভক্ত-শ্রোতাকে কাঁদিয়ে চিরতরে চলে যান না ফেরার দেশে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়