Cvoice24.com
corona-awareness

লোহাগাড়ায় চুরির নাটক, ফেঁসে গেলেন ২ ইউপি সদস্য

লোহাগাড়া প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫:১২, ১১ মে ২০২১
লোহাগাড়ায় চুরির নাটক, ফেঁসে গেলেন ২ ইউপি সদস্য

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে অপহরণের পর মোটরসাইকেল চোর সাজিয়ে এক যুবককে ফাঁসাতে গিয়ে উল্টো ফেঁসে গেছেন দুই ইউপি সদস্য। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিন জনকে আটক করে থানায় আনলে থানা থেকে কৌশলে সটকে পড়েন অভিযুক্ত দুই ইউপি সদস্য। এ ঘটনায় অপহরণের শিকার ওই যুবক ইউপি সদস্যসহ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

সোমবার দিবাগত রাত ১টায় চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। 

আটক তিন জন হলেন— কলাউজান হাছিলা মহাজন পাড়া ইদ্রিছ মোল্লার বাড়ি কামাল উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৩০), মো. মাহফুজ (২৩) ও মো. রেজাউল (৩০)।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্যরা হলেন— কলাউজান ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. সালাউদ্দিন (৩৮) ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. রহিম (৩৭)।

জানা গেছে, বান্দরবানের লামা উপজেলার সরই (কেয়াজু পাড়া) আমতলী পাড়া সেলিমের দোকান সংলগ্ন এলাকা থেকে অপহরণ করা হয় আমতলী এলাকার গোলাম ছোবহান ফকিরের ছেলে আবু বক্কর ছিদ্দিক (৩২) কে। পরে তাকে মোটরসাইকেল চোর সাজিয়ে মারধর করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন অভিযুক্ত দুই ইউপি সদস্য। মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে লোহাগাড়া থানায় একটি এজাহারও দায়ের করেন তারা। তবে পুলিশের সন্দেহ হলে বিষয়টি তদন্তে ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে গিয়ে ঘটনার কোন হদিস পায়নি পুলিশ। পুলিশের তদন্তে আসল ঘটনা বেরিয়ে এলে অপহরণের শিকার ‍যুবকের কাছ থেকে মামলা নিয়ে অভিযুক্ত তিন জনকে আটক করে।

অপহরণের শিকার আবু বক্কর ছিদ্দিক বলেন, বাড়ির পাশের একটি দোকান থেকে আমাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। সিএনজিতে করে লোহাগাড়ার কলাউজানে নিয়ে গিয়ে মারধরের পর মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগ দিয়ে পুলিশে দেয়। পুলিশের বিচক্ষণতায় আসল ঘটনা বেরিয়ে এসেছে। মূলত জায়গা জমি বিরোধের জের ধরে ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় আমি ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছি।

অভিযুক্ত কলাউজান ইউপি সদস্য মো. সালাউদ্দিন সিকদার বলেন, ‘অপহরণের ঘটনার সঙ্গে আমি মোটেও জড়িত নয়। আমি যেহেতু জনপ্রতিনিধি আমাকে ফাঁসানোর জন্য এটি ষড়যন্ত্র মাত্র।’ আটক করে থানায় হস্তান্তরের বিষয় সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দিতে রাজি হননি।

কেয়াজু পাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক আবুল হাসেম জানান, মূলত জায়গা-জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় ছিদ্দিকের সাথে মারামারির ঘটনা ঘটে। রাতেই ছিদ্দিককে মারধর করে তুলে নিয়ে যাওয়ার সংবাদ পেয়ে উদ্ধারে অভিযান চালানো হয়েছিল।

লোহাগাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকের হোসাইন মাহমুদ জানান, লোহাগাড়ার কলাউজান ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সালাউদ্দিন ও রহিম উদ্দিনসহ কয়েকজন এক ব্যক্তিকে মোটরসাইকেল চুরি করেছে বলে থানায় নিয়ে আসে। বিষয়টি সন্দেহ হলে ঘটনাটি তদন্ত করা হয়। মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় সালাউদ্দিন মেম্বার ও রহিম মেম্বার কৌশলে থানা থেকে সটকে পরে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী যুবকের কাছ থেকে মামলা নেওয়া হয়েছে।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়