Cvoice24.com

ভারতের দেওয়া অ্যাম্বুলেন্স উপহার পেল ফটিকছড়িবাসী

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২২:৩৫, ২৫ জানুয়ারি ২০২২
ভারতের দেওয়া অ্যাম্বুলেন্স উপহার পেল ফটিকছড়িবাসী

ফটিকছড়ির সাংসদ সৈয়দ নজিবুল মাইজভাণ্ডারীর হাতে অ্যাম্বুলেন্সটির চাবি তুলে দেন ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার ড. রাজিব রঞ্জন।

বাংলাদেশকে দেওয়া ভারতের উপহারের লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্সের একটি পেল চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে ফটিকছড়ি উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ও ফটিকছড়ির সাংসদ সৈয়দ নজিবুল মাইজভাণ্ডারীর হাতে অ্যাম্বুলেন্সটির চাবি তুলে দেন ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার ড. রাজিব রঞ্জন।

এর আগে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আয়োজনে উপজেলা পরিষদের হলরুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা নাবিল চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী এমপি।

এতে আরও বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ আবু তৈয়ব, তরিকত ফেডারেশনের যুগ্ম মহাসচিব তৈয়বুল বশর মাইজভাণ্ডারী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহিনুল হাসান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেবুন নাহার মুক্তা, এডভোকেট ছালামত উল্লাহ চৌধুরী শাহীন, ফটিকছড়ি পৌরসভার মেয়র ইছমাইল হোসেন প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী বলেন, ‘ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্ব চিরকাল অটুট থাকবে। বিশ্বের কোনো শক্তিই এটিকে বিচ্ছিন্ন করতে পারবে না। মাঝে মাঝে কিছু স্বাধীনতাবিরোধী, মৌলবাদী শক্তি দু’দেশের সম্পর্ককে বিনষ্ট করতে চেষ্টা করে। কিন্তু তাদের চেষ্টা সফল হবে না। কারণ বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ভিত্তি হলো আস্থা ও বিশ্বাস। মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে রক্তে লেখা এ সম্পর্ক। দু’দেশের জনগণের মধ্যে এ সম্পর্ক ছিন্ন করা যাবে না। এ সম্পর্ক কেবল দুটি রাষ্ট্রের সম্পর্কই নয়, এ সম্পর্ক দুটি দেশের জনগণেরও। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দু’দেশের মৈত্রী সম্পর্ককে ইতিহাসের এক নতুন মাইলফলকে নিয়ে গেছেন।

উল্লেখ্য, নতুন এ অ্যাম্বুলেন্সটিতে রয়েছে অত্যাধুনিক সুযোগ ‍সুবিধা। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশ সফরকালে ১০৯টি লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্স সরবরাহের ঘোষণা দেন। এরই অংশ হিসেবে অ্যাম্বুলেন্সটি প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া করোনা কালীন পিপিই, কিট, চিকিৎসা সরঞ্জাম, টেস্টিং কিট, ভ্যাকসিন সরবরাহ এবং সক্ষমতা বৃদ্ধি সহায়তা করেছে ভারত।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়