Cvoice24.com

চবিতে চাকরি দেওয়ার নামে টাকা হাতানোর ঘটনায় সেই মানিকের বিরুদ্ধে মামলা

চবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২২:৪৪, ৬ আগস্ট ২০২২
চবিতে চাকরি দেওয়ার নামে টাকা হাতানোর ঘটনায় সেই মানিকের বিরুদ্ধে মামলা

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) কর্মচারী নিয়োগে আর্থিক লেনদেনের ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনায় অভিযুক্ত মানিক চন্দ্র দাশের বিরুদ্ধে মামলা করেছে প্রশাসন। শনিবার (৬ আগস্ট) রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম মনিরুল হাসান বাদি হয়ে হাটহাজারী থানায় এই মামলা করেন।

রাত ১০টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রহুল আমিন সবুজ। তিনি বলেন, ‘মানিক চন্দ্র দাশের বিরুদ্ধে প্রতারণা আইনে মামলা করা হয়েছে। আমরা তদন্ত করছি।’

মামলার কপিতে উল্লেখ করা হয়, আসামি নিজেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসের সেকশন অফিসার পরিচয় দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দপ্তরে রেজিস্ট্রার দপ্তর, হিসাব নিয়ামক ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তরে উচ্চমান সহকারী ও উপাচার্য দপ্তরে অফিস পিয়ন পদে চাকরি দেওয়ার কথা বলে মাদারীপুরের শিবচর খাড়াকান্দি এলাকার জনৈক রাজিব ফরাজীর কাছ  থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা, মাকসুদুল সালেহীন ও সোহেল খান থেকে চার লাখ ৭০ হাজার টাকাসহ সর্বমোট ৮ লাখ ২০ হাজার টাকা বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে প্রতারণা পূর্বক আত্মসাৎ করেন। 

পরবর্তীতে আসামি মানিক চন্দ্র দাস ওই ব্যক্তিদের চাকরি দিতে না পারায় বিভিন্ন অজুহাতে আত্মসাৎকৃত টাকা আজ নিবে কাল দিবে বলে কালক্ষেপণ করতে থাকে। এরমধ্যে আসামির সঙ্গে ভুক্তভোগীদের কথোপকথনের একটি অডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়িলে বিষয়টি ৬ আগস্ট ১টা ৪৫ মিনিটের দিকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। এতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মান সম্মান এবং সুনাম দারুন ভাবে ক্ষুন্ন হয়।

আসামির স্ত্রী মানিক চন্দ্র দাস স্বনামধন্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন গ্রন্থাগার সহকারী গ্রেড-২ হওয়া সত্ত্বেও নিজেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসের সেকশন অফিসার পরিচয় দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মান-সম্মান এবং ঐতিহ্যের কথা না ভেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে প্রতারণা মূলক বিশ্বাস ভঙ্গ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিকে কাজে লাগিয়ে অসুদুপায় অবলম্বন করে টাকা আত্মসাৎ করে।

প্রশঙ্গত, শনিবার সকালে 'চবিতে ফের শিক্ষক নিয়োগে ফোনালাপ ফাঁস, এবার ৮ লাখ টাকা নেওয়ার অভিযোগ' এই শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক অনলাইন গণমাধ্যম সিভয়েস২৪.কম। সেখানে রেজিস্ট্রার অফিসের নিন্মমান সহকারী মানিক চন্দ্র দাশের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগ তিন চাকরি প্রার্থীর কাছ থেকে ৮ লাখ ২০ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ তুলে ধরা হয়। এরপরই চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রশাসন।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়