Cvoice24.com

পদ্মা সেতুর আদলে হবে কালুরঘাট রেল কাম সড়ক সেতু, চলতি বছরেই ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

সিভয়েস প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:১২, ৬ জুলাই ২০২২
পদ্মা সেতুর আদলে হবে কালুরঘাট রেল কাম সড়ক সেতু, চলতি বছরেই ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

পদ্মা সেতুর আদলে কালুরঘাট সড়ক কাম রেল সেুর প্রস্তাবিত নকশা।

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের পর থেকেই বোয়ালখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসী শতবর্ষী কালুরঘাট সেতুর বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত জানার অপেক্ষায় ছিলেন। অবশেষে সেই অপেক্ষা কিছুটা কমলো ; ২০০১ সালে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা সেতুটি নির্মাণে আলোর মুখ দেখছে। পদ্মা সেতুর আদলে দ্বিতল ডিজাইনে নির্মিত হবে নতুন কালুরঘাট সেতু। যদিও নতুন ডিজাইনে সেতুটি নির্মাণের জন্য আগের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি ব্যয় করতে হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরেই কালুরঘাট সড়ক কাম রেল সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন হতে পারে। 

বুধবার (৬ জুলাই) বেলা ১১টায় সিআরবির সম্মেলন কক্ষে সেতুর প্রাথমিক সমীক্ষা শেষে সেতু নির্মাণের স্থান, নকশা, ব্যয় ও নির্মাণকাল নিয়ে প্রাথমিক প্রস্তাবনা রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরেছে দাতা সংস্থা কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক।

বৈঠক শেষে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘কালুরঘাট সেতু নিয়ে কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক ফিজিবিলিটি স্টাডি করছে। আমাদের জানানো হয়েছে, ব্রিজের উপরের ডেকে থাকবে সড়ক, নিচের ডেকে থাকবে রেললাইন। উভয়ই ডাবল লাইন হবে। রেল ডাবল লাইন হবে, সড়কও ডাবল লাইন। পদ্মা সেতুর আদলে আগামী বছরের শুরুতে এই সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে। এর ব্যয় ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৩৪১ কোটি টাকা। সেতুটির ৭৮০ মিটারের উপরে চলবে গাড়ি আর নিচে ট্রেন। দুটিই হবে ডাবল লাইনের। ফলে ট্রেন-গাড়ি একই সময়ে যেতেও পারবে, আসতেও পারবে। প্রাথমিকভাবে ব্রিজের দৈর্ঘ্য আমাদের বলা হয়েছে ৭৮০ মিটার, বায়াডাক্ট ৫ দশমিক ৬২ মিটার। স্পেন হবে ১০০ মিটার। ব্রিজের উচ্চতা হবে ১২ দশমিক ২ মিটার।’  

তিনি আরও বলেন, ‘আগামী মাসে কোরিয়ান এক্সিম ব্যাংক ফাইনাল ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্ট জমা দেবে। এরপর টেন্ডার হবে। আমাদের টেন্ডার শেষ করতে প্রায় ছয় থেকে আট মাস সময় লাগবে। তারপর ইডিসিএফ ফান্ড দেবে। ফান্ড দিলে কাজ শুরু হবে। টেন্ডারের পর সেতুটি নির্মাণের প্রায় চার বছর সময় লাগবে বলে জানিয়েছে। সেক্ষেত্রে আমাদের খরচ ৬ হাজার ৩৪১ কোটি টাকার মতো বলা হয়েছে।’

প্রস্তাবনা অনুযায়ী, সেতু নির্মাণের সম্ভাব্য সময় ধরা হয়েছে কাজ শুরুর সময় থেকে চার বছর। আর রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, একনেকে অনুমোদন, দরপত্রসহ আনুষাঙ্গিক প্রক্রিয়া শেষ করে আগামী বছর অর্থাৎ ২০২৩ সালে তারা সেতুর কাজ শুরু করতে পারবে। সেক্ষেত্রে সেতুটি নির্মাণ শেষ হতে বর্তমান সময় থেকে পাঁচ বছর অর্থাৎ ২০২৭ সাল পর্যন্ত সময় লাগবে।

এসময় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোছলেম উদ্দিন আহমেদ ও প্রকল্প পরিচালক গোলাম মোস্তফা।

Add

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়